লন্ডন: শুধু দেশে নয়, প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রিয়তা যে বিশ্বে এখনও অটুট, সেটাই আরও একবার প্রমাণিত হল। ব্রিটিশ ম্যাগাজিনের বিচারে বিশ্বের সেরা নেতার তকমা পেলেন নরেন্দ্র মোদী।

ব্রিটিশ হেরাল্ড পত্রিকা থেকে এই সমীক্ষা করা হয়েছিল। শনিবার রাত পর্যন্ত চলে সেই সমীক্ষা। একাধিক রাষ্ট্রনেতাকে হারিয়ে জয়ী হয়েছেন মোদী। তিনি একাই পেয়েছেন ৩০ শতাংশ ভোট। প্রতিযোগিতায় ছিলেন পুতিন, ট্রাম্প, জিংপিং সহ আরও অনেকে।

২৫ জন নেতাকে বেছে নেওয়া হয়েছিল সেই সমীক্ষার জন্য। অন্তত ৩০ লক্ষ মানুষ ভোট দিয়েছেন ওই ম্যাগাজিনে। সংস্থার ওয়েবসাইট ক্র্যাশ করে গিয়েছিল। নরেন্দ্র মোদীকে NaMo বলে উল্লেখ করা হয়েছিল।

‘অ্যাক্ট ইস্ট পলিসি’ ও জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে তাঁর বিশেষ উদ্যোগের জন্য মোদীর অনেক প্রশংসা করা হয়েছে। জুলাইতে ওই ম্যাগাজিনের কভারে থাকবে মোদীর ছবি। এর আগে এপ্রিলে ছিল পুতিনের ছবি।

তবে মোদীর এই সাফল্য প্রথম নয়। আগেও একাধিকবার এইভাবে তালিকায় প্রথম হিসেবে উঠে এসেছে মোদীর নাম।

গত বছরের শেষে ট্যুইপ্লোম্যাসির সমীক্ষায় দেখা যায়, বিশ্বের রাষ্ট্রনেতাদের মধ্যে ফলোয়ারের সংখ্যা সবথেকে বেশি মোদীর৷ ইনস্টাগ্রামে তাঁর ফলোয়ারের সংখ্যা ছিল ১৪.৮ মিলিয়ন৷ মোদীর পরেই ছিলেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো৷ তাঁর ফলোয়ারের সংখ্যা ১২.২ মিলিয়ন৷ মোদী ও জোকোর পর ফলোয়ার সংখ্যার নিরিখে তালিকায় তৃতীয় স্থানে ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ ইনস্টাগ্রামে তাঁর ফলোয়ারের সংখ্যা ১০ মিলিয়ন৷

TIME ম্যাগাজিনের ২০১৭-র বিশ্বের সেরা ১০০ জন প্রভাবশালী ব্যক্তির সম্ভাব্য তালিকায় ঠাঁই পেয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

রাজনীতিবিদ, শিল্পী, বিজ্ঞানী সহ বিভিন্ন পেশার সঙ্গে যুক্ত কৃতীদের ঠাঁই হয়েছিল সেই পত্রিকায়। ২০১৫ ও ২০১৬ সালেও এই পত্রিকা প্রকাশিত চূড়ান্ত প্রভাবশালী তালিকাতেও ঠাঁই পেয়েছিলেন মোদী। ২০১৫ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা মোদীকে নিয়ে একটি বিশেষ প্রতিবেদনও লিখেছিলেন সেখানে।