নয়াদিল্লি: করোনা মোকাবিলায় দেশের সাতটি রাজ্যের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। ওই সাত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আজ বৈঠকে বসতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই সাতটি রাজ্য হল মহারাষ্ট্র, অন্ধ্রপ্রদেশ, কর্নাটক, উত্তরপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, দিল্লি ও পঞ্জাব।

রিপোর্ট বলছে এই সাত রাজ্যেই রয়েছে দেশের মোট করোনা আক্রান্তের মধ্যে ৬৫ শতাংশ। ফলে ওই রাজ্যগুলি নিয়ে একই সঙ্গে চিন্তিত ও সতর্ক রয়েছে মোদী সরকার। ফলে কীভাবে করোনার বিরুদ্ধে ওই রাজ্যগুলিতে লড়াই করা যায় তা নিয়েই হবে বৈঠক।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। জানা যাচ্ছে ওই রাজ্যগুলির স্বাস্থ্যমন্ত্রীরাও এই বৈঠকে অংশ নেবেন। মনে করা হচ্ছে, এই রাজ্যগুলিতে কোভিড ১৯ কে নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেই দেশজুড়ে অনেকটা কমে যাবে সংক্রমণ।

মনে করা হচ্ছে, ওই রাজ্যগুলির কোভিড হাসপাতালগুলিতে সঠিক পরিষেবা পাওয়া যাচ্ছে কিনা, অক্সিজেন ভেন্টিলেশনের সঠিক ব্যবস্থা রয়েছে কিনা এসব নিয়ে কথা বলবেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি কেন ওই রাজ্যগুলিতে সংক্রমণ বেশি তা বোঝার চেষ্টা করা হবে।

অন্যদিকে বুধবার সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া রিপোর্ট অনুসারে, শেষ ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৩ হাজার ৩৪৭ জন। এই সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১,০৮৫ জনের।

নতুন সংক্রমণ ও মৃত্যুর জেরে দেশে মোট করোনা আক্রান্তর সংখ্যা দাঁড়াল ৫৬ লক্ষ ৪৬ হাজার ১১ টি। এরমধ্যে অ্যাক্টিভ কেস রয়েছে ৯ লক্ষ ৬৮ হাজারের বেশি। সুস্থ হয়ে উঠেছে মোট ৪৫ লক্ষ ৮৭ হাজার ৬১৪ জন। দেশজুড়ে করোনার জেরে মোট মৃত্যু হয়েছে ৯০ হাজার ২০ জনের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।