নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রীর কৃষিযোজনার ইতিমধ্যেই অংশ হিসেবে বহু কৃষকরা সাহায্য পেয়েছেন। করোনা লকডাউনের মাঝে কৃষিক্ষেত্রকে বাঁচিয়ে রাখতে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। রবিবারই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ৮.৫ কোটি কৃষকদের ব্যাংক অ্যাকাউণ্টে ১৭,১০০ কোটি টাকা ট্রান্সফার করেছেন।

২০১৮ সালে শুরু হওয়া এই প্রকল্পে ষষ্ঠতম ইনস্টলমেন্ট হিসেবে টাকার এই অংক কৃষকদের অ্যাকাউণ্টে পাঠানো হয়েছে। কৃষিক্ষেত্রে সুবিধা, নতুন করে কাজ শুরুর বিষয়ে আর্থিক সুবিধা দেওয়ার সময়ে এই ঘোষণা করা হয়েছে।

কৃষি পরিকাঠামোর ক্ষেত্রে ১ লাখ কোটি বরাদ্দ করা হয়েছে। নতুন সুবিধা তৈরির জন্য, কৃষিকাজ পরবর্তী ম্যানেজমেন্ট পরিকাঠামো এবং কমিউনিটি ফারমিং যেমন-কোল্ড স্টোরেজ, কালেকশন সেন্টার এবং প্রসেসিং ইউনিট ইত্যাদি।

প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনায় প্রত্যেক কৃষককে বছরে ৬০০০ টাকা করে প্রতিবছরে আর্থিক সাহা্য্য হিসেবে দেওয়া হয়। এই প্রকল্প সম্পূর্ণ কেন্দ্রীয় সরকারের আওতায়।

২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রী কিষাণ সম্মান নিধি যোজনার তরফে (PM-KISAN) ক্যাশ টাকার সুবিধা দেওয়া হয়। এখনো অবধি ৯.৯ কোটি কৃষককে ৭৫ হাজার কোটির সাহায্য দেওয়া হয়েছে, এমন তথ্যই পাওয়া গিয়েছে সরকারী সূত্রে।

এই টাকা সরাসরি পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে উপভোক্তাদের ব্যাংক অ্যাকাউণ্টে। কৃষকদের সুবিধার্থে আধার কার্ড সংযুক্ত করা রয়েছে এমন একটি অ্যাকাউন্টে এই টাকা দেওয়া হচ্ছে। সমবন্টন এবং সকলকে একই সুবিধা দিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সরকারের তরফে।

করোনা ভাইরাসের আবহে প্রধানমন্ত্রী কিষাণ সম্মান নিধি যোজনা সক্রিয় হয়েছে। কোভিড লকডাউন পরিস্থিতিতে ২২ হাজার কোটি টাকা কৃষকদের সাহায্যে দেওয়া হয়েছে, এমনটাই জানা গিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার সূত্রে।

কৃষি পরিকাঠামো উন্নয়নে এক লক্ষ কোটি টাকার তহবিল ঘোষণা করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার প্রধানমন্ত্রীর দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী কৃষি পরিকাঠামো তহবিলের আনুষ্ঠানিক সূচনা করা হবে রবিবার। সেই মতনই সামনে এল নমো-বার্তা।

কৃষকদের জন্য নতুন প্রকল্প ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কৃষকদের সঙ্গে কথাও বলেন। কৃষি পরিকাঠামো খাতে ১ লক্ষ কোটি টাকার প্রকল্পের ঘোষণা কেন্দ্রের।

কোভিড-১৯ মহামারী সংকটে ২০ লক্ষ কোটি টাকার অর্থনৈতিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। তারই একটি অংশ নিয়ে এই কৃষি-কাঠামো তহবিল গঠন করা হয়। কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট ‘কৃষি পরিকাঠামো তহবিল’ এর অধীনে এক লক্ষ কোটি টাকার কেন্দ্রীয় এই সহায়তার অনুমোদন দিয়েছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের মনে করছে যে এই তহবিল ফসল কাটার পরবর্তী ব্যবস্থাপনার পরিকাঠমো, গোষ্ঠী কৃষি, কোল্ড স্টোরেজ, কৃষি ফসল সংগ্রহ কেন্দ্র ও প্রক্রিয়াকরণ ইউনিট তৈরির অনুঘটক হিসাবে করবে। এর ফলে কৃষকদের উৎপন্ন ফসলের দাম বৃদ্ধি পেতে পারে।

কৃষকের কাছে সুবিধা পৌঁছে দিতে ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রকে সঙ্গে ১২ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের মউ সাক্ষর হয়েছে। তিন শতাংশ হারে সুদ দেওয়া হবে। সর্বাধিক দুই কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হবে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও