নয়াদিল্লি: শনিবার সেনা বাহিনীর সঙ্গেই দীপাবলি কাটাতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে প্রতিবছর এই কাজ করে আসছেন মোদী। মনে করা হচ্ছে, এবারও তার অন্যথা হবে না।

কিছু রিপোর্টে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী গুজরাতে থাকতে পারেন, আবার অন্য কয়েকটি রিপোর্ট জানাচ্ছে, রাজস্থানের জয়সলমীরেও দীপানলি পালন করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী মোদী সেনাদের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে। একই সঙ্গে সাধারণ মানুষকে জানিয়েছেন, তাঁরা যেন একটি প্রদীপ সীমান্তে মোতায়েন জওয়ানদের জন্য জানান। যারা প্রতিমুহূর্তে আমাদের রক্ষা করছে। তিনি টুইটে বলেন, “এই দিওয়ালিতে #Salute2Soldiers যারা সীমানায় থেকে আমাদের রক্ষা করছেন তাঁদের জন্য একটি করে দীপ জ্বালাই।”

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী যখন দেশবাসীকে এমন আর্জির কথা জানিয়েছেন, সেদিনই সীমান্তে শহিদ হল ভারতীয় সেনা ও নিরাপত্তা রক্ষীর ৩ সদস্য। এরমধ্যে রয়েছেন বিএসএফ-এর ১ জওয়ান। সাব-ইনস্পেক্টর পদমর্যাদার অফিসারের নাম রাকেশ ডোভাল। তিনি আর্টি রেজিমেন্টে পোস্টেড ছিলেন বলে জানিয়েছে সীমান্তরক্ষী বাহিনী। পাশাপাশি, ভারতীয় সেনার ২ জওয়ানও শহিদ হয়েছে বলে খবর। তাঁরা দু’জনই ৫৯ রেজিমেন্টের সদস্য।

যদিও এরপরেই পাকিস্তানকে পালটা জবাব দিয়ে উচিৎ শিক্ষা দিয়েছে ভারতীয় বাহিনী। ভারী অস্ত্রের সাহায্যে দেওয়া হয় জবাব। ভারতীয় সেনার জবাবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সীমান্তের ওপারে। ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় একাধিক বাংকার। সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে ভারতের পালটা প্রত্যুত্তরে নিহত হয়েছে কমপক্ষে ১১ পাক সেনা। আহত হয়েছে আরও ১৬ জন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।