আমেদাবাদ: দেশের প্রথম বুলেট ট্রেনে প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ আজ, বৃহস্পতিবার সকালে গুজরাতের সবরমতী আশ্রমে এই প্রকল্পের সূচনা করেন তিনি৷ এদিন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে৷

প্রকল্প চালু করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, ‘‘আজ স্বপ্ন-পূরণের পথে আরও এক ধাপ এগোল ভারত৷এই প্রকল্প দেশকে এগিয়ে যেতে আরও সাহায্য করবে৷বাড়বে গতি৷ বাঁচবে সময়৷ বাড়বে বিকাশ৷ কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়বে৷’’

এদিনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বুধবার সস্ত্রীক ভারত সফরে এসেছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে৷ এদিন, তিনি বলেন, ‘‘এটা ঐতিহাসিক ঘটনা৷ এই প্রকল্প ভারত-জাপানের সঙ্গে সম্পর্ক আরও নিবিড় হল৷ আমি আজ খুশি, এই ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী হতে পেরে৷’’

জানা গিয়েছে, বুলেট ট্রেন প্রকল্পের খরচ হবে মোট ১,০৮,০০০ কোটি টাকা৷ খরচের ৮১ শতাংশ জাপান দেবে মাত্র ০.১ শতাংশ সুদে। এই টাকা ৫০ বছরে ফেরতযোগ্য৷ ৫০৮ কিমি দীর্ঘ এই বুলেট ট্রেন প্রকল্প ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। তবে তার আগে ২০২২ সালেও শুরু হয়ে যেতে পারে। মুম্বই থেকে আহমেদাবাদ পর্যন্ত চলবে ট্রেনটি৷

রেল মন্ত্রক সূত্রে খবর, ২০২২ সালের ১৫ অগস্টের দিন চলবে দেশের প্রথম বুলেট ট্রেন। ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবসের দিনই দেশের দ্রুততম এই ট্রেনের চাকা প্রথম গড়াবে৷

ভবিষ্যতে দিল্লি ও মুম্বই, কলকাতার মধ্যে বুলেট ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা করছে রেল মন্ত্রক৷ জানা গিয়েছে মুম্বই ও আমেদাবাদের মধ্যে চলাচলকারী বুলেট ট্রেন রুটের বেশিরভাগ মাটির ১৮ মিটার উপরে থাকবে৷ সাত কিলোমিটার বুলেট পথ থাকবে সমুদ্রের নিচ দিয়ে৷

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।