নয়াদিল্লি: কৃষি বিল নিয়ে তুমুল আপত্তি তোলায় এবার বিরোধীদের একহাত নিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সোমবার জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে তুলোধনা করলেন বিরোধীদের। ‘‘কৃষকদের ভুল বোঝাচ্ছেন বিরোধীরা, তাঁদের উপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলার ভয়েই প্রতিবাদে সরব বিরোধীরা’’, এদিন বিরোধীদের দুষে এমনই মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বিরোধীদের তুমুল হইচইয়ের মধ্যেই রবিবার রাজ্যসভায় পাস হয়ে গিয়েছে কৃষি বিল। কৃষি বিল নিয়ে তুমুল আপত্তি ছিল বিরোধীদের। রবিবার অধিবেশন কক্ষে বিলের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানাতে থাকেন বিরোধী তৃণমূল থেকে শুরু করে অন্য দলের সাংসদরা।

তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন রুল বুক ছিঁড়েছেন ও ডেপুটি চেয়াম্যানের মাইক ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ। ‘শাস্তি’ হিসেবে তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন ও দোলা সেন-সহ মোট ৮ বিরোধী সাংসদকে বরখাস্ত করেছেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু।

হট্টগোলের জেরে ১০ মিনিট অধিবেশন মুলতুবি করে দেওয়া হয়। পরে অধিবেশন শুরু হলে ধ্বনি ভোটে পাস হয়ে যায় নয়া কৃষি বিল। এরপর সোমবার অধিবেশন শুরু হতেই ডেরেক ও’ব্রায়েন, দোলা সেন-সহ রাজ্যসভার ৮ সাংসদকে সাসপেন্ড করে দেন চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু।

এদিকে, কৃষি বিল নিয়ে আপত্তি তোলায় এবার প্রধানমন্ত্রীর রোষের মুখে বিরোধীরা। নরেন্দ্র মোদীর কথায়, “কৃষকদের স্বার্থে এই বিল অত্যন্ত সহায়ক একটি ভূমিকা নেবে। একুশ শতকে কৃষকদের আয় বাড়ানোর সংস্থান রয়েছে এই বিলে।’’

মোদী আরও বলেন, ‘‘দেশের কৃষক সমাজের আর্থিক অবস্থার উন্নতি হবে। বিলটি আইনে পরিণত হলেই দেশের যে কোনও প্রান্তে নিজেদের উৎপাদিত ফসল বিক্রি করতে পারবেন কৃষকরা। বিরোধীরা নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধি করতেই ভুল বোঝাচ্ছে।’’

এরই পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী এদিন আরও বলেন, ‘‘কেন্দ্রের বিজেপি সরকার সব সময় কৃষক-স্বার্থ সুরক্ষিত রাখার কথা ভাবে। কোথাও কৃষিমাণ্ডি বন্ধ হবে না। কৃষকদের ভুল বোঝাচ্ছেন বিরোধীরা। নিজেদের স্বার্থ সুরক্ষিত রাখতেই কৃষক সমাজকে বিভ্রান্ত করছেন বিরোধীরা।’’

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।