ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: রবিবার সকালে জম্মু কাশ্মীরের হাণ্ডিয়ারাতে এনকাউন্টারে শহিদ হয়েছেন কর্নেল, মেজর সহ ৫ ভারতীয় সেনা। এই ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

রবিবার দুপুরে নরেন্দ্র মোদী ট্যুইট করে জানিয়েছেন, “যে সকল বীর জওয়ান এবং সেনাবাহিনী হাণ্ডিয়ারাতে শহিদ হয়েছেন তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি। তাঁদের এই ত্যাগ দেশ মনে রাখবে। দেশের প্রতি তাঁদের ডেডিকেশন এবং দেশের মানুষদের সুরক্ষা দেওয়ার অবিরাম চেষ্টাকে কুর্ণিশ জানাই। তাঁদের পরিবার এবং কাছের মানুষদের দুঃখে সমবেদনা প্রকাশ করেছেন”।

পাশাপাশি জানানো হয়েছে, এনকাউন্টার চলাকালীন খতম করা হয়েছে ২ জঙ্গিকেও। কাশ্মীরের উত্তর দিকে রাজধানী শ্রীনগর থেকে ৭০ কিমি দূরে হান্ডিওয়ারা এলাকার চাঞ্জমুল্লা গ্রামে এই লড়াই চলে।

সেনার তরফে জানানো হয়েছে, গ্রামের বেশ কয়েকজন বাসিন্দাকে বন্দি করে রেখেছিল জঙ্গিরা। তাঁদের উদ্ধার করতে গিয়েই শুরু হয় এনকাউন্টার। সেনা ও জম্মু কাশ্মীর পুলিশের সঙ্গে চলে গুলির লড়াই। ২১ রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের মেজর সহ ৪ জওয়ান ও জম্মু কাশ্মীর পুলিশের এক জওয়ান এই এনকাউন্টারে শহিদ হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বাদে এই ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। শুধু তাই নয়, শ্রদ্ধা জানিয়েছেন জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা।

এরই মধ্যে নয়া তথ্য। ভারতীয় গোয়েন্দা রিপোর্ট বলছে, শুধু সীমান্তই নয়, এবার ট্যুইটার যুদ্ধ শুরু করতে চলেছে পাকিস্তান। ভারতের বিরুদ্ধে ঘৃণা ও দ্বেষ ছড়ানোর জন্য প্রায় ৭০০০ ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট সক্রিয়। এই অ্যাকাউন্টগুলিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। মূলত পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলিতে ভারতী বিরোধী বার্তা ছড়ানোর জন্যই এই ট্যুইটার অ্যাকাউন্টগুলিকে ব্যবহার করছে পাকিস্তান।

গোয়েন্দা সূত্রে খবর, এই কাজ এর আগেও পাকিস্তান করেছে। গত বছরই জম্মু কাশ্মীরে এই ধরণের হিংসামূলক বার্তা ছড়িয়েছে বিদ্বেষ তৈরি করার চেষ্টা চালিয়েছিল পাকিস্তান। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পরেই পাকিস্তান এই কাজ করার চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছে বলে খবর। তবে সফল হয়নি। বেশ কয়েকটি হ্যাশট্যাগ সোশ্যাল মিডিয়াতে ঘুরে বেড়াচ্ছে। “ShameOnModi” বা “ChaosInIndia” এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV