নয়াদিল্লি: দেশের প্রধানমন্ত্রীর ‘মন কি বাত’ অথবা ‘মনের কথা’য় রবিবার ছিল প্রতিরোধের কথা। শ্রমিক সংকট থেকে যোগাসন ও করোনা লকডাউন মোকাবিলার বার্তা, তবে এতকিছুর মাঝেও বাদ যায়নি সুপার সাইক্লোন আমফান। যা পশ্চিমবঙ্গ থেকে ওডিশাকে ব্যপকভাবে বিধ্বস্ত করেছে, ঘরবাড়ি হারিয়েছেন বহু মানুষ। তাই এমন প্রাকৃতিক দুর্যোগের সামনে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোয় সেখানকার মানুষদের মন থেকে কুর্ণিশ জানিয়েছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী।

‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে নরেন্দ্র মোদী জানিয়েছেন, “যে সাহস নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ এবং ওডিশার মানুষরা সুপার সাইক্লোন আমফানের মোকাবিলা করেছেন তা এককথায় প্রশংসাজনক। এমন সংকটের সময়ে গোটা দেশ সবরকমভাবে ওই দুই রাজ্যের পাশে আছে”।

তিনি আরও জানান, গোটা দেশ যখন করোনা ভাইরাস মোকাবিলা করতে ব্যস্ত সেইসময় দেশের পূর্বের দুটি রাজ্যে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের মুখোমুখি হয়ে তা সামাল দিয়েছে।

পাশাপাশি ক্ষতির দিকটিও উল্লেখ করে মোদী বলেছেন, “শেষ কিছুদিনে সুপার সাইক্লোন আমফানে ব্যপক ক্ষতি হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ ও ওডিশায়। নেই বহু বাড়ি। কৃষকরা ব্যপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। আমি নিজে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে পশ্চিমবঙ্গ এবং ওডিশায় গিয়েছিলাম”।

প্রসঙ্গত, মে মাসের ২২ তারিখ নরেন্দ্র মোদী পশ্চিমবঙ্গ এবং ওডিশায় আমফান বিধ্বস্ত পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে এসেছিলেন। সঙ্গে ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং নবীন পট্টনায়েক। শেষ কিছু বছরে এমন ঝড় দেখেনি গোটা দেশ তাই দুর্যোগের দু’দিন পরে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে এসেছিলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, আমফান বিধ্বস্ত পশ্চিমবঙ্গকে ১০০০ কোটির সাহা্য্যের হাত বাড়িয়েছে ভারত সরকার। পাশাপাশি, আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যে পরিবারে মৃত্যু হয়েছে তাঁদের ২ লাখ টাকা করে এবং যাদের শুধু ক্ষতি হয়েছে তাঁদের ৫০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ হিসেবে দেওয়া হবে। পশ্চিমবঙ্গ থেকে পরিস্থিতির ছবি সঙ্গে নিয়ে তিনি রওনা দিয়েছিলেন ওডিশার উদ্দেশ্যে। সেই রাজ্যে আমফানে ৫০০ কোটির আর্থিক সহায়তার হাত বাড়িয়েছে মোদী সরকার।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব