নয়াদিল্লি: বুধবার তথা ১জুলাই থেকে শুরু হচ্ছে আনলক-২। তার আগে মঙ্গলবার দেশবাসীকে করোনা মোকাবিলায় ফের সতর্কবার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী। একইসঙ্গে আগামী তিন মাস দেশের গরিব মানুষদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণায় করেছেন তিনি। দেশে করোনা সংক্রমণের পর এই নিয়ে ষষ্ঠবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষন দিলেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি করোনা মোকাবিলায় ভ্যাক্সিনের ট্রায়াল সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে এদিন জরুরি বৈঠক ডাকেন তিনি।

পড়ুন আরও- Breaking: ভারতের বড় সাফল্য, জুলাইতেই মানব শরীরে ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

যেভাবে দেশে করোনা সংক্রমণের হার ক্রমশ লম্বা হচ্ছে, তাতে মোদীর মন্ত্রী সভার সদস্যদের নিয়ে আজকের বৈঠক অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ন বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ, এদিনের বৈঠকে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষনের পাশাপাশি করোনা মোকাবিলায় সরকার এই মুহুর্তে কীকী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তাও তুলে ধরেন তিনি।

সরকারি সূত্রে খবর, মঙ্গলবারের বৈঠক থেকে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, মানব দেহে করোনার ভ্যাক্সিন পরীক্ষায় ড্রাগ কন্ট্রোলার এজেন্সি অফ ইন্ডিয়ার তরফে সবুজ সংকেত মিলেছে। খুব শীঘ্রই মানুষের দেহে এই প্রতিষেধক ব্যবহারের পরীক্ষা চালানো হবে। তবে তার আগে ভ্যাক্সিনটি পশুর দেহে প্রয়োগ করা হয়েছে এবং সাফল্য মিলেছে। ফলে এবার মানব দেহে প্রয়োগের পালা।

এই ভ্যাক্সিন তৈরীর বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক এবং ‘ডিজিসিআই’ এর ছাড়পত্র মেলার পরই ওষুধ তৈরীর কাজ শুরু করে দেয় ‘আইসিএমআর’ এবং ‘এনআইভি’। জানা গিয়েছে, আইসিএমআর,এনআইভি এবং হায়দরাবাদ ভারত বায়োটেকের সহযোগীতায় তৈরী এই ভ্যাক্সিনের নাম দেওয়া হয়েছে ‘কোভাক্সিন’।

এখন দেখার বিষয় হল, মানব দেহে করোনা রোধে কতখানি কার্যকরী ভূমিকা পালন করতে পারে এই কোভাক্সিন। যদিও ইতিমধ্যে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ফার্মাসিউটিক্যালস করোনার ওষুধ প্রস্তুতের কাজে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। শুধু তাই নয় অক্সফোর্ড ইউনিভার্সটি সহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের গবেষক মণ্ডলী করোনার ভ্যাক্সিন আবিষ্কারের কাজে প্রাণপন চেষ্টা করে চলেছেন।

প্রসঙ্গত, করোনার ভ্যাক্সিনের ক্ষেত্রে প্রথম সাফল্যের মুখ দেখে ভারত। এবার ভারতের মানবদেহে ট্রায়াল শুরু হচ্ছে ভ্যাক্সিনের। ভারতীয় সংস্থা ‘ভারত বায়োটেক’ তৈরি করেছে করোনার ভ্যাক্সিন COVAXIN. সোমবার ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়ার তরফ থেকে এই ভ্যাক্সিনের মানব শরীরে ট্রায়ালের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

ভারত বায়োটেকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে, প্রি-ক্লিনিক্যাল স্টাডিজের পর যে রিপোর্ট দেওয়া হয়েছিল, তার ভিত্তিতেই স্বাস্থ্য মন্ত্রক এই অনুমোদন দিয়েছে। ফেজ ওয়ান ও ফেজ টু ট্রায়াল শুরু হবে ভারতে। জুলাই মাস থেকেই সেই ট্রায়াল শুরু হবে বলে জানানো হয়েছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV