স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়কে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ তদারকির ‘সাব কন্ট্রাক্ট’ দিলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল। রাজ্য সরকারের সঙ্গে কথা বলে সমস্যা মেটানোর জন্য বলেন বাবুলকে।

ফ্ল্যাগ নেড়ে বৃহস্পতিবার ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর যাত্রার শুভ সূচনা করলেন পীযূষ গয়াল ও বাবুল সুপ্রিয়।এদিন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল বলেন, “আমি মাসে মাসে কলকাতা আসতে পারি না। বাবুল নিজে গঙ্গার নীচে মেট্রোর সুড়ঙ্গ পরিদর্শন করে এসেছেন। আমি ওকে বলব এই কাজ চালিয়ে যান। আমি ইস্ট – ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ তদারকির সাব কন্ট্রাক্ট বাবুলকে দিলাম। আপনি সব খেয়াল রাখুন। কোনও জায়গায় সমস্যা হলে মন্ত্রিসভার বৈঠকে আমাকে জানাবেন।”

রেলমন্ত্রী মুখে এদিন ‘সাব কন্ট্রাক্ট’ শব্দটি শুনে হাসির রোল ওঠে মঞ্চে ও দর্শকাশনে। তবে রেলমন্ত্রীর দেওয়া দায়িত্ব মাথা পেতে নিয়েছেন কেন্দ্রীয় বন, পরিবেশ ও জলবায়ু প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় ইঙ্গিত করেছিলেন, খুব তাড়াতাড়িই চালু হয়ে যাবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর ফেজ-১ অংশ। সংবাদমাধ্যমের কাছে তিনি বলেন, ‘আমি ভারতীয় রেলবোর্ডের চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলেছি। আমাকে জানানো হয়েছে, নভেম্বরের ৩০ তারিখ পার হয়ে গেলেও কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটির ছাড়পত্রের সময়সীমা কয়েকটা দিনের জন্য বাড়াতে তেমন কোনও সমস্যা হবে না।’ মন্ত্রীর এমন মন্তব্যের পরই ফের জল্পনা শুরু হয় ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর উদ্বোধন নিয়ে।

এদিন রাজ্য সরকারকে খোঁচা দিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, “কলকাতা আসলে খুব খুশি হই। বাবুল সারাক্ষণ কলকাতায় আসতে বলে এখানকার রেল প্রকল্পগুলির জন্য। পশ্চিমবঙ্গে আসতে ভালো লাগে কারণ এটা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের দেশ।”

গোয়েল বলেন, “২০০৯-এ ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ শুরু হয়েছিল। কিন্তু রুট পরিবর্তনের দাবির জেরে ৩ বছর কাজ বন্ধ ছিল। এটা দুর্ভাগ্যজনক। ৩ বছর দেরির জন্য কাজের খরচ বেড়ে গিয়েছে। তিনি আরও বলেন, “সবথেকে বেশি যেসব প্রকল্পে বরাদ্দ হয়েছে, তার মধ্যে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো অন্যতম।স্থানীয় সমর্থন পেলে দ্রুত কাজ করতে পারব।”

রাজ্য সরকারের কাছে সহযোগিতার দাবি করে রেলমন্ত্রী বলেন, “কিছু জায়গায় জমি সমস্যা আছে। কিছু জায়গায় রাজ্য সরকারের সাহায্য দরকার। আশা করব, সরকার সাহায্য করবে। ভালো সাহায্য পেলে বাকি মেট্রো প্রকল্পগুলি তাড়াতাড়ি শেষ করতে পারব।”