নয়াদিল্লি: যে বয়সে অন্য ছেলেমেয়েরা বই, খাতা, কলম কিংবা নিদেনপক্ষে হারমোনিয়ামে হাত পাকান সে বয়সেই ইনি হাতে তুলে নিয়েছেন পিস্তল৷ বয়স মাত্র ১৬ কিন্তু ইনার পিস্তুল থেকে বেরনো গুলি টার্গেট মিস করেনা খুব একটা ৷ নাহ, কোন ক্রাইমের জন্য নয় ইনার পিস্তল থেকে গুলি ছোটে সোনা জেতার লক্ষ্যে৷ হরিয়ানার মেয়ে মানু ভাকার, ১৬ বছরেই জাতীয় স্তরে পকেটে পুরেছেন ৯ টি সোনা৷ জাতীয় স্তরে দাগ কাটার পর ‘পিস্তল রানির’ চোখ এবার বিশ্ব মঞ্চে৷

আরো পড়ুন: কোহলির মুকুটে নতুন পালক, টপকালেন প্রাক্তন অধিনায়ককে

আইএসএসএফ বিশ্বকাপ, কমলওয়েথ গেমস, এবং ইয়ুথ অলিম্পিকের মত বিশ্ব মঞ্চে নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রাখতে মুখিয়ে রয়েছেন মানু৷ তিনি জানান, ‘আমি এই সব বড় ইভেন্টগুলোর জন্য অপেক্ষা করে আছি৷ আশা রাখছি ওগুলোতে ভালো পারফর্ম করতে পারব৷ বড় ইভেন্টগুলোতে পদক জেতার জন্য আমি সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করব’ হরিয়ানার দাদরি জেলাতে বড় হওয়া মানু, ঝাজ্জর ইউনির্ভাসাল সিনিয়ার সেকেন্ডারি স্কুলে প্রতিদিন চার-পাঁচ ঘন্টা প্র্যাক্টিস করেন৷

আরো পড়ুন: ‘ব্রিটিশ জঙ্গি’-কে কোহলির জুড়ুয়া ভেবে বোকা বনছে নেটিজেন

শুধু পিস্তলই নয় মারকুটে মেয়ের প্রথম ভালোবাসা হল বক্সিং ৷ পিস্তল শ্যুটিংয়ে আসার আগে মানু হাত পাকিয়েছিলেন বক্সিংয়ে৷ সেখানেও তিনি বেশ কয়েকটি পদক পকটস্থ করেছিলেন৷ নিজের বক্সিং প্রীতির বিষয়ে মনু জানান, ‘শ্যুটিং-এ আসার আগে আমি বক্সিং এ ছিলাম৷ থ্যাং তা মনিপুর মার্শাল আর্ট শিখতাম৷ ওই স্পোর্টসগুলো আমার খুব প্রিয় কারণ রিং-এ বিপক্ষকে আঘাত করে ধরাশায়ী করাটা আমি খুব উপভোগ করি৷ কিন্তু একটা ইভেন্টে চোট পাওয়াতে মা ওটা বন্ধ করান৷’

আরো পড়ুন: ১২৫ কোটির বকেয়া মেটাতে নির্দেশ বিসিসিআই’কে

মেয়েকে নিয়ে আত্মবিশ্বাসী মানু ভাকারের মা জানান, ‘আমার কথা মিলিয়ে নেবেন ২০২০ অলিম্পিকে ভারতের হয়ে খেলবে ও৷’ মা’র আত্মবিশ্বাসের মর্যাদা দিয়ে মাত্র দু’বছর আগে পিস্তল হাতে তুলে নেওয়া মনু একমাসের ব্যবধানে জাতীয় স্তরে দু’টি বড় রেকর্ড ভেঙেছেন৷২০১৭ ডিসেম্বরে তিরুবন্তপুরমে ৬১ তম জাতীয় শ্যুটিং চ্যাম্পিয়নশিপ-এ দশ মিটার এয়ার পিস্তলে অনেকদিন পর্যন্ত অক্ষুন্ন থাকা হেনা সিন্ধুর রেকর্ড ভাঙেন মানু৷

আরো পড়ুন: পিঙ্ক ম্যাচে পেনাল্টি অধিনায়কের

তবে শুধু বক্সিং বা শ্যুটিংয়েই শেষ নয় মানু একজন রাজ্যস্তরের স্কেটিং প্লেয়ারও৷ একদিন বাবা তাঁকে শ্যুটিং প্র্যাক্টিসে নিয়ে আসেন এটার দেখার জন্য যে মেয়ের এই খেলাটি কেমন লাগছে৷ প্রথমদিনই পিস্তল হাতে অব্যর্থ নিশানার প্রমান দেন মনু ৷ বাকিটা ইতিহাস৷