ঢাকা ও দোহা: বিদেশ সফর থেকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফিরিয়ে আনার জন্য নির্দিষ্ট করা বিমানের চালকের পাসপোর্ট না থাকায় তৈরি হয়েছে জটিলতা৷ সেই বিমানটি কাতারে অবতরণ করে৷ এর পর পাইলটকে কাতারি অভিবাসন বিভাগ আটকে দেয়৷ কী করে বাংলাদেশের সরকারি বিমান সংস্থার চালক এমন ভুল করলেন সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

কাতারে আটক পাইলট ফজল মাহমুদ আর শেখ হাসিনাকে বহন করা ফ্লাইট চালাবেন কিনা, এই বিষয়ে শুক্রবার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে পাইলটের দাবি, তিনি ভুলবশত পাসপোর্ট সঙ্গে নিতে পারেন নি৷ তাঁর এই দাবি কতটা গ্রহণযোগ্য তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

পাসপোর্ট ছাড়া তিনি কেন যাচ্ছিলেন, তা নিয়ে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা তদন্ত করছে। তদন্তের পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

বিদেশ সফরে শেখ হাসিনা এখন ফিনল্যান্ডে৷ সেখান থেকেই তাঁকে নিয়ে বিমান বাংলাদেশের ওই ফ্লাইটের ঢাকা ফেরার কথা৷ বাংলাদেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে, শেখ হাসিনাকে বহন করে আনা বিমানের জটিলতা নিয়ে কোনওরকম হালকা তদন্ত করা হবে না৷ বিশেষ ব্যবস্থায় ওই চালকের পাসপোর্ট দ্রুত কাতারের রাজধানী দোহাতে পাঠানো হচ্ছে৷ এই বিষয়ে সেখানকার বাংলাদেশি দূতাবাসকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ পাইলট ফজল মাহমুদ এখন দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে রয়েছেন৷