নয়াদিল্লি: করোনা পিছু ছাড়ছে না কাউকেই। এবার আক্রান্ত হলেন ‘প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো’ বা পিআইবি প্রধান কেএস ধাতওয়ালিয়া।

রবিবার তাঁকে চিকিৎসার জন্য এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গিয়েছে কয়েকদিন আগেই একই মঞ্চে একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন তিনি।

গত বুধবার তাঁর সঙ্গে মঞ্চে ছিলেন মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার, প্রকাশ জাভড়েকর। মন্ত্রিসভার বৈঠকে কী সিদ্ধান্ত হয়েছে, সেই সংক্রান্ত একটি ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন পিআইবি প্রধান।

ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আরও অনেক সাংবাদিক। তবে, তাঁরা প্রত্যেকেই নির্দিষ্ট দূরত্বে বসেছিলেন বলে জানা গিয়েছে।

রবিবার সকালের হিসেব অনুযায়ী, ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ৯,৯৭১ অর্থাৎ প্রায় ১০ হাজারের কাছাকাছি।

করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২,৪৬,৬২৮। ভারতে এই ভাইরাসে মোট মৃত্যু হয়েছে ৬,৯২৯ জনের।

এইমসের ডিরেক্টর ড. গুলেরিয়া বলেন, যদিও আগামী ২-৩ মাসে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে তবে জাতীয় স্তরে কোনও কমিউনিটি ট্রান্সমিশন হয়নি।

দেশের রাজ্যগুলির মধ্য এখনও আক্রান্তের সংখ্যায় সবার উপরে মহারাষ্ট্র। ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৭৩৯ জন আক্রান্ত হয়েছে। এখনও পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮২,৯৬৮। তবে মহারাষ্ট্র সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় লকডাউন শিথিল হতে শুরু করেছে।

আগের সপ্তাহে চিনকে করোনা আক্রান্তের বিচারে পার করেছিল ভারত। ২৯ মে থেকে প্রত্যেকদিন ৮০০০ বা তার বেশি নতুন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সামনে আসছে। ২ জুন ২ লক্ষ পেরিয়ে যায় আক্রান্তের সংখ্যা। এখন প্রত্যেক ১৫ দিনে দ্বিগুণ হচ্ছে আক্রান্তের সংখ্যা।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।