চারপাশের পরিবেশে হরেক রং-এর এক এক রকম প্রভাব পড়ে আমাদের জীবনে৷ সেরকমই রং-এর এক গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে আমাদের অসুস্থতার ওপর৷ জানেন কি? ফটো মেডিসিন চর্চা আজ বিশ্ব জুড়ে? বাস্তুশাস্ত্রে রঙের বিষয়টি বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ইদানিং৷ প্রত্যেক মানুষই চান তার সাধের বাড়িটি মনের মতো রঙে সাজানো হোক৷ আপনি কি ধরনের রং নির্বাচন করছেন তা ঠিক করে দেয় আপনার রুচিবোধ। বিভিন্ন রোগ-ব্যাধির উপর রঙের প্রভাব অর্থাৎ ‘ফোটো মেডিসিন’ আজ সর্বজনবিদিত।

বিভিন্ন রোগ-ব্যাধির উপর রঙের প্রভাব:

১। হাঁপানি ও অনিদ্রার রোগীদের উপর বেগুনি রঙের প্রভাব লক্ষ করা যায়। এই রংটি আর্থারাইটিস, গাউটস ও বিভিন্ন শারীরিক ব্যথা বেদনা নিরাময়ের পক্ষে সহায়ক। যেখানে মশার প্রকোপ বেশি সেখানে বেগুনী রঙ বিশেষ কার্যকর। এই রঙটি শরীরে পটাশিয়ামের ঘাটতি মেটাতে সাহায্য করে থাকে।

২। শরীরের শিথিল ভাবের ক্ষেত্রে সিঁদুর রং শুভ ফলদায়ক। ৩। অন্য দিকে বাচ্চাদের ঘর লাল রঙ করা উচিত নয়। কিন্তু যে বাচ্চার স্মৃতি শক্তি কম তাদের ক্ষেত্রে লাল বা গোলাপী রঙ বুদ্ধির বিকাশে সহায়তা প্রদান করে। ৪। হলুদ রং হৃদ্‌পিণ্ড ও স্নায়ুকে নিয়ন্ত্রণ করে। তাই উন্মাদনা, মানসিক দুর্বলতা, অম্বল, পিত্তজনিত সমস্যা প্রভৃতি থেকে মুক্তিতে হলুদ রং কার্যকারী ভূমিকা গ্রহণ করে থাকে। এটি মস্তিষ্ককে সক্রিয় করতে বিশেষ ভূমিকা নেয়। বুদ্ধির বিকাশে হলুদ রং বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ করে।

৫। আকাশী রং পেট সংক্রান্ত রোগের পক্ষে বিশেষ সহায়ক। ৬। ফুসফুস এবং নাড়ির উপর কমলা রঙের প্রভাব লক্ষ করা যায়। এই রং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। ৭। লাল রং খিদে বাড়াতে সাহায্য কর৷ পাশাপাশি সর্দি-কাশি, রক্তচাপ এবং গলার রোগ নিরাময়ে বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ করে থাকে। ৮। পক্ষাঘাতগ্রস্ত রোগীদের জন্য সাদা রং বিশেষ ভূমিকা নেয়। তাই এই রোগীদের ঘর, আসবাব ও পোশাক যদি সাদা রঙের হয় তবে এটা রোগ নিরাময়ের ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা নেয়।