কলকাতা:  অনলাইন ফার্মাসির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে আগামী ১৮ অক্টোবর দেশজুড়ে প্রায় আট লক্ষ ওষুধের দোকান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিল দোকানিদের সর্বভারতীয় সংগঠন অল ইন্ডিয়া অর্গানাইজেশন অব কেমিস্টস অ্যান্ড ড্রাগিস্টস। তাতে সমর্থন দিয়েছে মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভদের অন্যতম বড় সংঠন ফেডারেশন অব মেডিক্যাল অ্যান্ড সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভস অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্ডিয়া। উৎসবের মরশুমের মুখে এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে তারা। এআইওসিডির পশ্চিমবঙ্গ শাখা বেঙ্গল কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট অ্যাসোসিয়েশ্ন ধর্মঘটের বিষয়ে আগামী সপ্তাহের গোড়ায় কর্মসমিতির বৈঠক ডেকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। আসল খবরটা হল, পুজোড় মুখে এতবড় একটা ধর্মঘটে শামিল হয়ে মুখ্যমন্ত্রী তথা স্বাস্থ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোপের মুখে পড়তে চাইছেন না। কারণ, বছর কয়েক আগে ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকানের বিরোধিতা করে রাজ্যে ওষুধের দোকানিদের ধর্মঘটে সামিল করায় সংগঠনের উপর বেজায় চোটে যান মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের ড্রাগ কন্ট্রোলার ধর্মঘটী দোকারদারদের শোকজের চিঠি পাঠান। ফলে সময় নিচ্ছেন তারা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।