স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা:  আজ, রবিবার কলকাতায় ৯০-টাকায় পৌঁছল পেট্রোলের দাম। বাড়ল ডিজেল-ও। এ নিয়ে টানা ছ’দিন বাড়ল তেলের দর। তবে এবার কি সেঞ্চুরি হাঁকাবে পেট্রোল? চিন্তায় ঘুম উড়েছে আম-জনতার৷

রবিবার শহরে আইওসি-র পাম্পে লিটার-পিছু পেট্রল ২৮ পয়সা বেড়ে হল ৯০.০১ টাকা। ৩২ পয়সা বেড়ে ডিজেল সেখানে লিটারে বিকোচ্ছে ৮২.৬৫ টাকায়। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্র শুল্ক কমানোর সম্ভাবনা খারিজ করেছে৷ ফলে পেট্রলের দর আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা৷ শনিবার কলকাতায় প্রতি লিটারে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম বেড়েছিল যথাক্রমে ২৯ পয়সা ও ৩৭ পয়সা করে৷ শহরে৷ ডিজেলের দাম গিয়ে দাঁড়ায় ৮২ টাকা ৩৩ পয়সায়।

করোনাকালে এমনিতেই টান পড়েছে রোজগারে৷ লাগাতার পেট্রোপণ্য়ের দামবৃদ্ধি তাই অনেকটা গোদের উপর বিষফোঁড়ার মতোই অবস্থা৷ তথ্য বলছে, গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে পরপর বেড়েই চলেছে পেট্রোল, ডিজেলের দাম৷ যা চিন্তা বাড়াচ্ছে আমজনতার৷

কিন্তু হু হু করে কেন এত দাম বাড়ছে৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনাকালে দেশে দেশে  লকডাউন হওয়ায়৷ কলকারখানা থেকে পরিবহন, স্তব্ধ হয়ে যায় সবকিছুই৷ ফলে চাহিদা কমে পেট্রল, ডিজেলেরও৷ কিন্তু ইতিমধ্য়েই ঘরবন্দি জীবন থেকে মানুষ মুক্তি পেয়েছে৷ ভারত-সহ বিভিন্ন দেশে শুরু হয়েছে টিকাকরণ৷ ওয়াকিবহাল মহলের অনুমান, এর জেরে ফের বাড়ে পেট্রোল, ডিজেলের চাহিদা৷ এছাড়া ওপেকভুক্ত দেশগুলিও তেলের উৎপাদন কমিয়ে দেয়। ফলে আন্তর্জাতিক বাজারেও বাড়ছে জ্বালানি তেলের দাম৷ যার জের এসে পড়েছে ভারতের বাজারেও৷

কেন্দ্র এ জন্য বিশ্ব বাজারে অশোধিত তেল ও উভয় জ্বালানির দরের হিসেবকে দায়ী করলেও বিরোধীদের পাল্টা দাবি, মোদী সরকারের আমলে পেট্রলে শুল্ক বেড়েছে প্রায় ২৫০%, ডিজেলে প্রায় ৮০০%। করোনা সঙ্কটের মধ্যেই গত মার্চে ও মে মাসে পেট্রলে লিটারে ১৩ টাকা ও ডিজেলে ১৬ টাকা শুল্ক বেড়েছে। মূলত অশোধিত তেলের দাম কম (গত বছর যা ছিল শূন্যেরও নীচে) থাকার সময়ে দেশে শুল্ক বেড়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.