কলকাতা: করোনার মতোই বেলাগাম জ্বালানির দাম৷ বেড়েই চলেছে পেট্রোল-ডিজেলের দাম (Petrol and Diesel)৷ কলকাতায় ফের দাম বেড়েছে পেট্রোল-ডিজেলের৷ পেট্রোলের দাম বেড়েছে লিটার প্রতি ২৮ পয়সা৷ কলকাতায় শুক্রবার লিটার প্রতি পেট্রোলের দাম ৯২ টাকা ৪৪ পয়সা। একইভাবে লিটারে ৩৪ পয়সা বেড়ে ডিজেলের দাম ৮৫ টাকা ৭৯ পয়সা৷ ভোটের পর থেকে লাগাতার দাম বাড়ছে জ্বালানির৷ পেট্রোল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধির সঙ্গেই স্বাভাবিকভাবেই বাড়ছে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দামও৷ করোনাকালে নাভিশ্বাস উঠছে আমজনতার৷

একদিকে দেশে করেনারা সেকেন্ড ওয়েভ তাণ্ডব চালাচ্ছে৷ একাধিক রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে দাম বেড়েই চলেছে পেট্রোল-ডিজেলের। প্রতিদিন রেকর্ড ভেঙে এগোচ্ছে জ্বালানিতে তেলের দাম। রাজ্যে-রাজ্যে পেট্রোল-ডিজেলের দাম বেড়েই চলেছে। নির্বাচন পর্ব মেটার পর থেকে লাগাতার দাম বাড়ছে জ্বালানি তেলের। এর আগে পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের নির্ঘণ্ট প্রকাশের ঠিক পরের দিনই দাম বেড়েছিল পেট্রোল-ডিজেলের। কিন্তু তারপর থেকে একটানা মাস দুয়েক নড়াচড়া করেনি পেট্রোল-ডিজেলের দাম। নির্বাচন পর্ব মিটতেই ফের দাম বাড়তে শুরু করেছে জ্বালানি তেলের।

কলকাতায় শুক্রবার ফের বাড়ল পেট্রোল-ডিজেলের দাম। এদিন কলকাতায় পেট্রোলের দাম বেড়েছে লিটার প্রতি ২৮ পয়সা৷ কলকাতায় শুক্রবার লিটার প্রতি পেট্রোলের দাম ৯২ টাকা ৪৪ পয়সা। একইভাবে লিটারে ৩৪ পয়সা বেড়ে ডিজেলের দাম ৮৫ টাকা ৭৯ পয়সা৷

এর আগে ১৫ এপ্রিল দেশের তেল কোম্পানিগুলি পেট্রোল ও ডিজেলের দাম কমিয়েছিল। তবে সামান্য পরিমাণ দাম কমানোর সুফলের আঁচ মেলেনি। অন্যদিকে, বাংলা-সহ পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন পর্ব চলাকালীন পেট্রোল-ডিজেলের দামের হেরফের করা হয়নি। তবে ভোট মিটতেই ফের ঊর্ধ্বমুখী জ্বালানি তেল। স্বাভাবিকভাবেই করোনাকালে নিত্য প্রয়োজনীয় জিসিনের দাম ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

ইঙ্গিতটা মিলেছিল আগেই। ভোট পর্ব মিটে গিয়ে পাঁচ রাজ্যের নতুন সরকার ক্ষমতায় ফিরতেই আশঙ্কা সত্যি হল। দেশের বাজারে ফের দাম বাড়তে শুরু করেছে পেট্রোল-ডিজেলের। তবে রাজ্যে-রাজ্যে এই দাম বৃদ্ধির হার এক নয়। স্থানীয় কর-সহ একাধিক করের জেরে রাজ্যে-রাজ্যে জ্বালানি তেলের দামে ফারাক রয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.