নয়াদিল্লি : বিকাশ দুবেকে মারা হয়েছে ভুয়ো এনকাউন্টারে। এই অভিযোগ উঠে আসছে এবার। তবে তা তদন্তসাপেক্ষ। যদিও কুখ্যাত দুষ্কৃতি বিকাশ দুবের এনকাউন্টার নিয়ে একটি তথ্য মিলেছে, যা বেশ চাঞ্চল্যকর। জানা গিয়েছে, বিকাশ দুবের এনকাউন্টার হওয়ার ঘন্টাখানেক আগেই সুপ্রিম কোর্টে একটি পিটিশন জমা পড়ে, যেখানে দুবেকে ভুয়ো এনকাউন্টারে মারা হতে পারে বলে অভিযোগ জানানো হয়।

বিকাশ দুবের প্রাণ বাঁচানো হোক, এই দাবি নিয়ে ওই পিটিশন জমা করেন এক ব্যক্তি। উত্তরপ্রদেশের পুলিশ ভুয়ো এনকাউন্টার করতে পারে, এই দাবি জানিয়ে পিটিশন ফাইল করা হয়। আবেদনকারী সেখানে বিকাশ দুবের প্রাণ বাঁচানোর আর্জি জানায়। বিকাশ দুবেকে নিরাপত্তা দেওয়া হোক বলেও জানানো হয় ওই পিটিশনে।

পিটিশনে জানানো হয়েছে বিকাশ দুবের বেশ কয়েকজন সহযোগীকে যেভাবে মারা হয়েছে, সেভাবেই বিকাশ দুবেকে ফেক এনকাউন্টার বা ভুয়ো এনকাউন্টারে মারা হতে পারে। এই মর্মে বক্তব্য রেখে পিটিশন ফাইল করেন মুম্বইয়ের বাসিন্দা ওই ব্যক্তি। বেশ কয়েকদিন ধরেই বিকাশ দুবের সহযোগী ও অন্যান্য অপরাধীদের এভাবে মেরে ফেলছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ বলে অভিযোগ জানানো হয়।

মুম্বইয়ের যে আইনজীবী পিটিশন ফাইল করেছেন তিনি জানান, বিকাশ দুবের কেস সিবিআইয়ের হাতে স্থানান্তরিত করা হোক। বিকাশ দুবের বাড়ি ভেঙে ফেলার ঘটনায় একটি এফআইআর করা হয়েছে। এদিকে, শুক্রবার মধ্যপ্রদেশ থেকে উত্তর প্রদেশ নিয়ে আসার সময় পালানোর চেষ্টা করার সময় পুলিশের এনকাউন্টারে মৃত্যু হয় বিকাশ দুবের।

বিবৃতিতে উত্তর প্রদেশ পুলিশ জানায়, তাঁরা বিকাশ দুবেকে সারেন্ডার করতে বলেছিল, কিন্তু সে গুলি চালায়। এরপর বাধ্য হয়েই পালটা জবাব দেয় পুলিশ। পুলিশের বক্তব্য অনুযায়ী, যে গাড়িটি উলটে গেছে, সেই গাড়ির মধ্যেই ছিল বিকাশ দুবে। জানানো হয়েছে গাড়ি ওলটানোর পরেই পালানোর চেষ্টা করছিল বিকাশ দুবে। এক পুলিশ কর্মীর পিস্তল নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে বিকাশ দুবে। পুলিশের দিকে সে গুলিও ছোঁড়ে বলা দাবি করা হয়েছে।

এরপরেই পালটা গুলি চালায় পুলিশ। কানপুর পুলিশ বিবৃতিতে বলেছে, গাড়ি উলটে পুলিশ ও অভিযুক্ত আহত হয়। এরপর বিকাশ দুবে এক কনস্টেবলের কাছ থেকে বন্দুক কেড়ে নিয়ে দৌড়াতে শুরু করলে, পুলিশও তাঁকে ধাওয়া করে আত্মসমর্পণ করতে বললে সে গুলি চালায়।

এরপরেই আত্মরক্ষায় পালটা গুলি চালায় পুলিশ। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “বিকাশ দুবেকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়, হাসপাতাল তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ