আগরতলা:  সরকারি কর্মীদের কাজ নিয়ে মোটেই সন্তুষ্ট নন মুখ্যমন্ত্রী। বিশেষ করে যে গতিতে কাজ করছেন সরকারি কর্মীরা তাতে ক্ষুব্ধ ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপুল দেব। আর তাই তাঁর হুঁশিয়ারি, ঠিক মতো কাজ না করলে স্বেচ্ছা অবসর দেওয়া হবে সরকারি কর্মীদের। খোদ মুখ্যমন্ত্রীর এহেন মন্তব্যে যথেষ্ট চাপ বেড়েছে সরকারি কর্মীদের একাংশের মধ্যে।

শুধু তাই নয়, মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, প্রত্যেক সরকারি কর্মীর উচিৎ সঠিকভাবে কাজ করা। কারণ রাজ্যে হাজার হাজার যুবক বেকার রয়েছে। তাই যদি ভালভাবে কেউ কাজ করতে না পারেন, তাহলে তার চাকরি ছেড়ে দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এক্ষেত্রে নিজের প্রসঙ্গ টেনে আনেন বিপ্লব দেব। তিনি বলেন, নিজের কাজ তাঁর কাছে উপাসনার মতো। আর তাই যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে সেই কাজ করার চেষ্টা করি। কিন্তু বহু সরকারি কর্মীই তাঁর কাজ ঠিক মতো করছেন না বলে মন্তব্য করেন। আর তাই একেবারে সরাসরি তাঁর হুঁশিয়ারি, নয় কাজ কর না হলে চলে যাও…।

মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের এহেন হুঁশিয়ারি কোনও নির্দিষ্ট সরকারি কর্মীর ক্ষেত্রে নয়। তাঁর নিশানায় রয়েছে রাজ্যের সমস্ত স্তরের সরকারি কর্মীরা। এমনকি তালিকায় খোদ রাজ্যের মুখ্যসচিবও রয়েছে বলে সর্বভারতীয় এই সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে দাবি করা হয়েছে। প্রকাশিত খবর মোতাবেক, আগরতলায় ত্রিপুরা কর্মচারী সমিতির সভায় যোগ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব।

আর সেখানেই মুখ্যমন্ত্রী হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, যিনি সঠিকক ভাবে কাজ করতে পারবেন না, তাঁকে স্বেচ্ছা অবসরে পাঠানো হবে। একই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন, বেশ কিছু সরকারি অফিসে কর্ম সংস্কৃতি নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। সেগুলি দ্রুত বদলের পরামর্শ দেন তিনি। রাজনৈতিকমহলের মতে, কর্মসংস্কৃতি বদলের মধ্যে দিয়ে আদৌতে সরকারি কর্মীদের কাজের মানসিকতাকেই ব্যাখ্যা করেছেন। আর তা বদল হলে অবশ্যই কাজে গতি আসবে বলেও মনে করছে ওয়াকিবহালমহল।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প