বেজিং:  গত কয়েক বছর যাবত চিন এবং আমেরিকার মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ চলছে। আর সেই বাণিজ্যযুদ্ধে কার্যত ক্ষতগ্রস্ত হচ্ছে বেশ কয়েকটি দেশ। এই প্রসঙ্গে চিনের শীর্ষ সংবাদপত্র পিপলস ডেলির দাবি, আমেরিকার সঙ্গে চলমান বাণিজ্যযুদ্ধে বেজিং কখনও আমেরিকার কাছে মাথা নত করবে না। বরং আগামীদিনে চিন আরও শক্তিশালী হবে।

মার্কিন অর্থনীতি যখন নতুন করে মন্দার কবলে পড়তে যাচ্ছে তখন এই বক্তব্য তুলে ধরল চিনের এই পত্রিকাটি। পিপলস ডেলিকে চিনের কমিউনিস্ট সরকারের মুখপত্র হিসেবে দেখা হয়। ফলে সেই কাগজের প্রকাশিত খবর আসলে কমিউনিস্ট সরকারের বক্তব্য হিসাবেই মনে করা হয়।

পিপলস ডেলি তাদের প্রথম পৃষ্ঠায় এক মন্তব্যে কলামে লিখেছে, আমেকিার বাণিজ্যযুদ্ধের মুখে চিন তার জাতীয় স্বার্থ ও মর্যাদা রক্ষার ক্ষেত্রে পাথরের মতো শক্ত থাকবে। গত সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চিনের দুই হাজার কোটি ডলারের পণ্যের ওপর শতকরা ২৫ ভাগ শূল্ক আরোপ করেছেন।

আগে এই শূল্ক ছিল শতকরা ১০ ভাগ। আর এই প্রসঙ্গে চিনের একটি রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম তার সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাকাউন্টে বলেছে, চিনের সঙ্গে বাণিজ্য আলোচনা শুরু করতে আমেরিকা মোটেই আন্তরিক নয় বরং আলোচনার পরিবেশ নষ্ট করেছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।