নয়াদিল্লি: গ্যাস সিলিন্ডারগুলির দাম বর্তমানে প্রায় ৭২০ টাকা। কিন্তু আপনি যদি চান, তবে একটি গ্যাস সিলিন্ডার একেবারে বিনামূল্যে পেতে পারেন।আজ্ঞে হ্যাঁ, একেবারে বিনা খরচে মিলতে পারে এই বছরের প্রথম গ্যাস সিলিন্ডারটি।

পেটিএম এলপিজি গ্রাহকদের জন্য একটি দুর্দান্ত অফার এনেছে। পেটিএমের এই অফারটি ব্যবহার করে আপনি এক মাসের গ্যাস সিলিন্ডারের টাকা বাঁচাতে পারবেন। বিনামূল্যে পেতে পারেন গ্যাস সিলিন্ডার।

পেটিএমে গ্যাস সিলিন্ডার বুকিং-এর ক্ষেত্রে আপনি ৭০০ টাকা ক্যাশব্যাক পেতে পারেন। এই অফারের সুবিধা নিতে আপনাকে শুধুমাত্র পেটিএম অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করতে হবে এবং গ্যাস বুকিং করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনাকে ৭০০ টাকা ক্যাশব্যাক দেওয়া হবে।

ক্যাশব্যাক সুবিধা পেতে আপনাকে রিচার্জ এবং পে বিলস এর অপশনে ক্লিক করতে হবে এবং বুক এ সিলিন্ডারে ক্লিক করতে হবে। এখানে আপনাকে গ্যাস সিলিন্ডার সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য পূরণ করতে হবে। এরপর বুক করার আগে আপনাকে করতে হবে আসল কাজ। বুকিং দেওয়ার আগে, আপনাকে FIRSTLPG এর প্রোমো কোড দিতে হবে, যাতে আপনি ক্যাশব্যাকের সুবিধা পেতে পারেন।

প্রথম বুকিংয়ে মিলবে সুবিধা

পেটিএমের এই অফারটি কেবল তাদের জন্য যারা প্রথমবার পেটিএম থেকে গ্যাস বুক করবেন। এই মুহুর্তে এলপিজির একটি সিলিন্ডারের দাম ৭২০ টাকা। আপনি যদি পেটিএম থেকে গ্যাস বুক করেন এবং প্রোমো কোড ব্যবহার করেন তবে সিলিন্ডারের পুরো মূল্য আপনার অ্যাকাউন্টে ফেরত পাবেন। পেটিএম এই অফারের জন্য অনেকগুলি গ্যাস সংস্থার সাথে চুক্তি করেছে।

পেটিএম থেকে গ্যাস সিলিন্ডার বুকিংয়ের সুবিধা

  • পেইটিএম গ্যাস সিলিন্ডার বুকিংয়ে ৭০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক দিচ্ছে।
  • এই অফারটি প্রথমবার গ্যাস বুক করার জন্য।
  • নতুন বছরে প্রথম গ্যাস সিলিন্ডার বুকিংয়ের জন্য ক্যাশব্যাক দেওয়া হচ্ছে।
  • এই অফারটিতে বুকিংয়ের পরিমাণে কমপক্ষে ৫০০ টাকা হতে হবে।
  • এই অফারটি একবার ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • ক্যাশব্যাকের জন্য টাকা দেওয়ার সময় আপনাকে পাওয়া কুপনটি স্ক্র্যাচ করতে হবে।
  • এই ক্যাশব্যাক অফারটি ৩১ জানুয়ারি অবধি প্রযোজ্য।
  • আপনি বুকিংয়ের ২৪ ঘন্টার মধ্যে একটি ক্যাশব্যাক স্ক্র্যাচ কার্ড পাবেন।
  • এই স্ক্র্যাচ কার্ডটি ৭ দিনের মধ্যে খুলতে হবে।
  • আপনি যদি সেই সময়ে স্ক্র্যাচ কার্ডটি খুলতে না পারেন তবে ক্যাশব্যাক এবং অফার বিভাগে গিয়ে এটি খুলতে পারেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.