নয়াদিল্লি: সংসদীয় কমিটির প্রশ্নের মুখে পড়তে হল পেটিএম গুগলকে। সংসদীয় কমিটি কেন্দ্রীয় সরকারে পাস করা আইনের আওতায় পেটিএম এবং গুগলের কাছে উত্তর চেয়ে একগুচ্ছ প্রশ্নমালা পাঠিয়ে দিয়েছে। বলা হয়েছে তাদের পাঠানো উত্তরমালার সঙ্গে যেন প্রমাণ স্বরূপ নথিপত্র দেওয়া থাকে।

গুগলের কাছ থেকে সংসদীয় কমিটি জানতে চেয়েছে ভারতে থেকে মোট কত টাকার ব্যবসা করেছে? পাশাপাশি প্রশ্ন রাখা হয়েছে মাসিক এবং বাৎসরিক কত টাকার ব্যবসা হয় এই সংস্থার? এছাড়া জানতে চাওয়া হয়েছে এখানে ব্যবসা করার জন্য গুগল কত টাকা কর দেয় ভারতকে?

এদিকে পেটিএম এর কাছ থেকে জানতে চাওয়া হয়েছে, তাদের সংস্থায় চিনের কত বিনিয়োগ করা আছে? পেটিএম এ চিনা বিনিয়োগ করা ব্যক্তি বা সংস্থা কারা? পাশাপাশি জানতে চাওয়া হয়েছে পেটিএম এর বার্ষিক কত টাকা আয় হয় এবং কত টাকা কর দিয়ে থাকে।

সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে পার্সোনাল ডাটা প্রটেকশন বিল এর আওতায় এইরকম একগুচ্ছ প্রশ্নমালা পাঠানো হয়েছে এই দুই সংস্থার কাছে। বলা হয়েছে এই সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য বিস্তারিত ভাবে এবং লিখিতভাবে দ্রুত জমা দিতে।

তাছাড়া তাদের ব্যবসার নিরপেক্ষতা এবং ভারত সম্পর্কে তাদের ম্যানেজমেন্টের দৃষ্টিভঙ্গি কবুল করতে বলা হয়েছে। ভারতীয় কর্মীদের ব্যাপারে এদের মনোভাব এবং ভারতে কর্মসংস্থান বৃদ্ধিতে এদের ভূমিকার কতটা তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.