প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: ভরসন্ধ্যায় বিজেপির দলীয় কার্যালয় বাঁচাতে এসে দুষ্কৃতীদের হাতে আক্রান্ত হলেন ভাটপাড়ার বিজেপি বিধায়ক পবন সিং। তাকে লক্ষ্য করে বোমা মারার অভিযোগ শাসক দলের আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। জগদ্দল থানার পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে । ঘটনার জেরে বৃহস্পতি বার সন্ধ্যায় তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে জগদ্দল থানার অন্তর্গত কলাবাগান এলাকায়।

ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন পুত্র পবন সিংকে লক্ষ্য করে বোমা ছুঁড়ল দুষ্কৃতীরা । জগদ্দল থানা এলাকার কলাবাগানের ঘটনা। বৃহস্পতিবার ভর সন্ধ্যা বেলায় ওই এলাকার বিজেপির একটি দলীয় কার্যালয় দখল নিতে আসে তৃণমূল কর্মীরা। তারা বিজেপির বন্ধ কার্যালয়ে সবুজ রঙ করছিল বলে অভিযোগ। স্থানীয় সূত্রে নিজের অফিসে বসে এই খবর পান ভাটপাড়ার বিজেপি বিধায়ক পবন সিং। দ্রুত দলীয় কার্যালয় বাঁচাতে কলাবাগান এলাকায় ছুটে আসেন বিধায়ক পবন সিং। তিনি ও অন্যান্য বিজেপি কর্মীরা তখন ঘটনাস্থলে এসে তাদের কার্যালয় যে তৃণমূল কর্মী রঙ করছিল, তাকে হাতে নাতে ধরে ফেলে। ওই তৃণমূল কর্মী বিধায়কের কাছে ক্ষমা চাইলে তাকে ছেড়ে দেন পবন।

একদিকে যখন এই ঘটনার জেরে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে, অন্যদিকে তখন অন্যান্য তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা কলাবাগান এলাকায় জড়ো হয়ে পরপর দুটি বোমা ছোঁড়ে পবন সিংকে লক্ষ্য করে বলে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ বিজেপির। একটি বোমা ফাটলেও সেটি কারুর গায়ে লাগেনি বলে দাবি স্থানীয় কর্মীরা। যদিও অন্যটি গিয়ে পড়ে নর্দমায়, সেটি ফাটেনি। ফলে কোন প্রকারে রক্ষা পান সাংসদ অর্জুন-পুত্র। এরপরই দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসে স্থানীয় জগদ্দল থানার পুলিশ।

পুলিশের কাছে এই ঘটনার অভিযোগ দায়ের করেন পবন সিং। তিনি বলেন, “তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আমাকে লক্ষ্য করে বোমা মেরেছিল। আমি বেঁচে গিয়েছে, গায়ে লাগেনি। তবে অন্য কারুর ও ক্ষতি হতে পারত। এই সময় জুটমিলের শিফট শেষ হয়েছে। শ্রমিকরা ঘোষপাড়া রোড দিয়ে বাড়ি ফিরছিল। ওদের লাগতে পারত। এই ঘটনা তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ পবনের। তাঁর দাবি, যেহেতু কলাবাগান এলাকার দলীয় কার্যালয় দখল করতে এসে ওরা বাঁধা পেয়েছে, সেই জন্য আমার উপর হামলা করল ।”

অন্যদিকে, জগদ্দল থানার পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। যদিও এই ঘটনায় এখনো পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ঘটনার জেরে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে জগদ্দল থানার অন্তর্গত কলাবাগান এলাকায়। ইতিমধ্যে অভিযুক্তদের খুঁজছে পুলিশ না ফাটা বোমা উদ্ধার করে নিয়ে গিয়েছে পুলিশ কর্মীরা। অন্যদিকে বিজেপি বিধায়ক পবন সিং এর ওপর বোমা মারার ঘটনায় তৃণমূলের যোগসাজসে অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূলের জেলা নেতৃত্ব। এই সম্পর্কে তৃণমূলের বিধানসভার তৃণমূলের মুখ্য সচেতক নির্মল ঘোষ জানান “এই বোমাবাজির ঘটনা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও সাজানো ঘটনা। কারন শুক্রবার ভাটপাড়া পুরসভায় বিজেপির বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেসের কাউন্সিলররা। তাই এই সব মিথ্যা কথা বলছে বিজেপি। আমাদের কোন দলীয় কর্মী এই ধরনের বোমা মারার মত কোন কাজের সাথে যুক্ত নয়।”