স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: জুনিয়র চিকিৎসকদের লাগাতার কর্মবিরতি অবস্থানের ফলে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চরম অব্যবস্থা অব্যাহত। হাসপাতালে ভরতি থাকা রোগীরা ঠিক মতো চিকিৎসা পরিষেবা পাচ্ছে না। এই অভিযোগে ফের বুধবার সকালে হাসপাতালের সামনের রাস্তায় পথ অবরোধ করলেন রোগীর আত্মীয়রা।

এই অবস্থায় শহরের গোবিন্দনগর বাসস্ট্যাণ্ডে ঢোকার মুখে আটকে পড়েছে বহু যাত্রীবাহী বাস ও অন্যান্য যানবাহন। দুর্বিষহ গরমে সমস্যায় সাধারণ মানুষ। একই অভিযোগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই জায়গায় রোগীর আত্মীয়রা পথ অবরোধ করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে অবরোধ তুলে দেয়। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

জুনিয়র চিকিৎসকদের অবস্থান না তুলে কেন সাধারণ মানুষের উপর পুলিশ লাঠিচার্জ করল তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। পথ অবরোধ শুরুর সঙ্গে সঙ্গে বিশাল পুলিশ বাহিনী হাসপাতাল চত্বরে পৌঁছেছে।

গোটা রাজ্যের সঙ্গে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালেও এদিন আউটডোর পরিষেবা বন্ধ থাকায় চরম সমস্যায় দূরদূরান্ত থেকে আসা রোগী ও তাদের আত্মীয়রা। এই বিষয়ে আগাম কিছুই জানানো হয়নি বলে অভিযোগ।

সাতসকালে এই হাসপাতালের আউটডোরে চিকিৎসা করাতে আসা কল্পনা মণ্ডল বলেন, এই বিষয়ে আগাম কোন নোটিশ দেওয়া হয়নি। বন্ধের খবর না পেয়ে আমরা প্রত্যেকেই দূরদূরান্ত থেকে এসেছি। এই ঘটনায় প্রশাসনের দায়িত্বহীনতার অভিযোগ তুলেও তিনি সরব হন।

একই অভিযোগ সনাতন দাস সহ অন্যান্যদেরও। তারা প্রত্যেকেই জানিয়েছেন, রাতে বাড়ি থেকে বেরিয়েছি৷ কারণ সকাল সকাল হাসপাতালে আসতে হবে তাই৷ সেই থেকে হাসপাতালে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। পরে আউটডোর পরিষেবার খবর শুনছেন।

এই অবস্থায় প্রচণ্ড গরমের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ দাড়িয়ে বাড়ি ফিরে যেতে হবে ভেবেই উঠতে পারছি না। এই অঘটনায় প্রশাসনের দায়িত্বশীল ভূমিকা নিয়ে তারা প্রত্যেকেই প্রশ্ন তুলছেন। এই বিষয়ে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের প্রতিক্রিয়া মেলেনি।