স্টাফ রিপোর্টার,কলকাতা: এনআরএসের পর এসএসকেএম হাসপাতাল৷ রোগী মৃত্যু ঘিরে হাসপাতালে ভাঙচুর৷ মারধর করা হয়েছে নার্স ও আয়াদের৷ পুলিশ মৃতের ভাইকে গ্রেফতার করেছে৷

গত ১৫ জুলাই কিডনির সমস্যা নিয়ে এসএসকেএম হাসপাতাল ভর্তি হন মহম্মদ সাকির৷ বছর ত্রিশের ওই রোগী মোমিনপুরের বাসিন্দা৷ সোমবার সকালে এসএসকেএম হাসপাতাল তার মৃত্যু হয়৷ এরপরই ওই রোগীর পরিবারের সদস্যরা হাসপাতালে তান্ডব চালায়৷ হাসপাতালে ভাঙচুরের পাশাপাশি কর্তব্যরত ডাক্তার,নার্স ও আয়াদেরকে মারধর করেছে বলে অভিযোগ৷ ঘটনায় আহত হয়েছেন মৃতের ভাই মহম্মদ সাজিদ৷ যদিও পরে তাকে পুলিশ গ্রেফতার করে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে৷

অন্যদিকে এসএসকেএম হাসপাতাল থেকেই রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়েছে এক রোগী৷ খগেন্দ্রনাথ মাইতি নামে ওই রোগী পূর্ব মেদিনীপুরের এগরার বাসিন্দা৷ গত ৬ অগস্ট বাঁ কানের নিচে টিউমারের চিকিৎসার জন্য এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি হন৷

তারপর গত ৯ অগস্ট হাসপাতালের কর্মীরা তাকে নিয়ে যান অ্যানাস্থেশিয়া বিভাগে৷ কিছুক্ষন পরে খগেন্দ্রনাথের হাতে পরীক্ষার রিপোর্ট দিয়ে তাকে ছেড়ে দেন কর্মীরা৷ তারপর থেকে তার আর কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না৷ হাসপাতালের গাফিলতির জন্যই এই ঘটনা ঘটেছে বলে ভবানীপুর থানায় অভিযোগ করেন নিখোঁজ পরিবার৷ পরিবারের দাবি, হাসপাতালের সিসিটিভির ফুটেজে দেখা গিয়েছে,গত ৯ অগস্ট খগেন্দ্রনাথ বাইরে ঘোরাঘুরি করছেন৷ দু’টি ঘটনারই তদন্তে নেমেছে পুলিশ৷

কয়েক মাস আগে রণক্ষেত্র হয়ে উঠেছিল সরকারি হাসপাতাল এনআরএস৷ চিকিৎসায় গাফিলতিতে রোগী মৃত্যুর অভিযোগ উঠে৷ অভিযোগ, জুনিয়র চিকিৎসকদের প্রথমে মারধর করে মৃতের বাড়ির লোকেরা৷ পালটা মারধর করা হয় জুনিয়র চিকিৎসকদের৷ এতেই আহত হন দুই চিকিৎসক৷ এবার এসএসকেএম হাসপাতালের দু’টি ঘটনারই তদন্তে নেমেছে পুলিশ৷