কাশফুলের মাঝে ছুটে চলেছে রেলগাড়ি৷ একই ভাবে কাশবনের মাঝে ছুটে চলেছে দুই ভাই-বোন৷ এতেই লুকিয়ে ছিল তাদের অফুরন্ত ভাললাগা৷ অপু-দুর্গার সেই ভালোলাগা বারে বারে পৌঁছে গিয়েছে বিশ্বের দরবারে৷ নিশ্চিন্দিপুরের অপুর পরিবার আবারও জায়গা করে নিল শ্রেষ্ঠ ছবির তালিকায়৷

বিবিসির ১০০ বিদেশি চলচ্চিত্রের তালিকায় নাম উঠে এল সত্যজিৎ রায়ের ‘পথের পাঁচালী’৷ একমাত্র ভারতীয় ছবি যা এই তালিকায় নির্বাচিত হয়েছে৷ যত দিন যাচ্ছে তত যেন ১৯৫৫ সালে তৈরি কার এই ছবির প্রাধান্য, গুরুত্ব বুঝতে শিখছে দর্শক৷

ক্রিস্টোফার নোলান থেকে মাজিদ মাজিদির৷ বিশ্বের বিভিন্ন কোণ থেকে প্রত্যেক তাবড় তাবড় পরিচালকরা ‘পথের পাঁচালী’র প্রশংসা করেছেন বহুবার৷ বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘পথের পাঁচালী’ উপন্যাস অবলম্বনে এই ছবি তৈরি করেন সত্যজিৎ রায়৷ মানিকবাবুর অপু-দূর্গার শিরোপায় আবারও জুড়ল এক পালক৷ ১০০ টি সেরা ছবির তালিকায় ১৫ নম্বরে রয়েছে ‘পথের পাঁচালী’৷

এই সিনেমার হাত ধরেই বাংলা চলচ্চিত্র জগৎ পেয়েছিল সত্যজিৎ রায়ের মতো কালজয়ী পরিচালককে৷ বিদেশি ভাষার তৈরি একুশ শতকের সেরা ১০০ টি চলচ্চিত্র বাছাইয়ের পর্বে ভোট দিয়েছিলেন ৪৩ টি দেশের ২০০ জন ক্রিটিক৷

বিবিসির সেরা চলচ্চিত্রের তালিকার শীর্ষে রয়েছে একটি জাপানি ছবি৷ পরিচালক আকিরা কুরোসাওয়ার ‘সেভেন সামুরাই’৷ ১৯৫৪ সালে মুক্তি পায় ছবিটি৷ এছাড়া ২৪ টি দেশের, ১৯ টি ভাষার, ৬৭ জন পরিচালকের ১০০ টি ছবি বাছাই করে নেওয়া হয়েছে এই তালিকায়৷ এর মধ্যে ২৭ টি হাইয়েস্ট-রেটেড ফরাসি ছবি, ১২ টি ম্যান্ডারিনের, ১১ টি জাপানি এবং ১১ টি ইতালির৷ চারজন মহিলা পরিচালকের ছবিও রয়েছে বিবিসির এই লিস্টে৷