মুম্বই: রাজস্থান সরকারের পরে মহারাষ্ট্র সরকারও রামদেবের করোনিলকে নিষিদ্ধ করল। মহারাষ্ট্র সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ জানিয়েছেন, করোনিলের ক্লিনিকাল ট্রায়াল সম্পর্কে এখনও কোনও সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই, এক্ষেত্রে মহারাষ্ট্রে এই ওষুধ বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

বৃহস্পতিবার তিনি টুইট করে লিখেছেন, জয়পুরের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স থেকে খোঁজ নেওয়া হবে আদৌ করোনিলের ক্লিনিকাল ট্রায়াল হয়েছিল কিনা। পাশপাশি রামদেবকে সতর্ক করে বলা হয়েছে, মহারাষ্ট্র সরকার কোনভাবেই মহারাষ্ট্রে জাল ওষুধ বিক্রির অনুমতি দেবে না।

তাৎপর্যপূর্ণভাবে, আয়ুষ মন্ত্রকের আপত্তির পরে রাজস্থান রামদেবের ওষুধ করোনিল বন্ধের কথা জানায়। রাজস্থান সরকার জানিয়েছে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের অনুমোদন ছাড়া কোনও আয়ুর্বেদিক ওষুধ কোভিড -১৯ মহামারি ঔষধ হিসাবে বিক্রি করা যাবে না।

পাশাপাশি রাজস্থান সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, করোনার ওষুধ বলে যদি কোনও দোকান থেকে কোনও ওষুধ বিক্রি করা হয়, তবে বিক্রেতার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এর আগে রামদেবের দাবি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল কেন্দ্রীয় আয়ুশ মন্ত্রক। কোভিড ১৯ এর ওষুধ হিসেবে করোনিলের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং ড্রাগ টেস্টিংয়ের কথা বলা হয়েছে।

আয়ুষ মন্ত্রকের পরে উত্তরাখণ্ড আয়ুর্বেদ বিভাগও পতঞ্জলির দাবি অস্বীকার করেছে। তবে পতঞ্জলি দাবি করছে তাঁরা এই ওষুধের সমস্ত তথ্য আয়ুশ মন্ত্রকে পাঠিয়েছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ