নয়াদিল্লি: নীবর মোদীর ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে শনিবার অর্থমন্ত্রক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ৫০ কোটি টাকার বেশি ঋণের ক্ষেত্রে পাসপোর্ট সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য দেওয়া বাধ্যতামূলক করল৷ কারণ সম্প্রতি নীবর মোদীর প্রতারণার জেরে ১২,৬৩৬ কোটি টাকা আর্থিক কেলেঙ্কারি হয়েছে৷ এই আর্থিক কেলেঙ্কারির প্রেক্ষিতে আর্থিক পরিষেবা দফতরের সচিব রাজীব কুমার মাইক্রো ব্লগিং ওয়েবসাইটে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সে কথা জানিয়েছেন৷

এমন সিদ্ধান্ত নিতে হল কারণ অর্থনৈতিক অপরাধ করে বিদেশে থাকা বিজয় মালিয়া নীরব মোদী এবং মেহুল চোক্সিদের এখন বিদেশ থেকে দেশে আনাটাই কঠিন কাজ হয়ে দাড়াচ্ছে সরকারের৷ যেহেতু এরা কেউই দেশে ফিরে তদন্তের মুখোমুখি হতে চাইছেন না৷

মালিয়াকে ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপি অ্যাখ্যা দেওয়া হলেও মোদী এবং চোক্সিকে প্রতারক অর্থ পাচারকারি অ্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে৷ মামা- ভাগ্নে এই বিখ্যাত অলংকার ব্যবসায়ী মোদী চোক্সি পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাকের অফিসারদের যোগ সাজসে ভুয়ো অঙ্গীকার পত্র (লেটার অফ আন্ডারস্ট্যান্ডিং) আদায় করে বিদেশে থাকা ব্যাংকের শাখা থেকে৷

কুমরা জানিয়েছেন ঋণের আবেদন পত্রের ক্ষেত্রে নতুন শর্ত জোড়া হয়েছে৷ তাছাড়া ব্যাংক এবার থেকে ৫০ কোটি বা তার বেশি ঋণ আগেই নিয়েছে এমন গ্রহীতার কাছ থেকে পাসপোর্টের সমস্ত তথ্য বিস্তারিত ভাবে ৪৫ দিনের মধ্যে চেয়ে পাঠাবে৷ গত সপ্তাহেই সরকার জানিয়েছিল বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ করা হচ্ছে এই ধরনের জালিয়াতি রুখতে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.