ঢাকা: ভয়াবহ রাত পেরিয়ে গিয়েছে৷ আশঙ্কা উৎকণ্ঠার প্রহর পার করেছেন মায়ানমারে দুর্ঘটনাগ্রস্থ বিমান বাংলাদেশের যাত্রী ও তাঁদের আত্মীয়রা৷ বৃহস্পতিবার সেখান থেকেই ঢাকায় ফিরে এল উদ্ধারকারী বিমান৷ ইয়াঙ্গন থেকে আসা সেই বিমানে ফিরলেন ১৭ জন যাত্রী৷ স্বস্তি পেয়েছেন সবাই৷ তবে দুর্ঘটনায় কোনও যাত্রীর মৃত্যু হয়নি বলেই জানিয়েছে মায়ানমার সরকার৷

বুধবার রাতে ঢাকা থেকে উড়ানের পর মায়ানমারের ইয়াঙ্গন বিমান বন্দরে অবতরণের সময় খারাপ আবহাওয়ার কারণে রানওয়েতেই পিছলে যায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস বিমান৷ রানওয়ে থেকে ছিটকে যাওয়ার পরেই ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক৷ সেই সংবাদ পেয়ে রীতিমতো ভেঙে পড়েন যাত্রীদের আত্মীয়রা৷ পরে তাঁদের জানানো হয় জখম হলেও সবাই বেঁচে রয়েছেন৷ রাতেই বেশকিছু যাত্রীকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷

আরও পড়ুন : শ্রীলঙ্কা বিস্ফোরণ: পরিবার হারিয়েছে দুশোরও বেশি শিশু

বৃহস্পতিবার ঢাকা থেকে পাঠানো হয় ইয়াঙ্গনে আটকে পড়া বাংলাদেশি যাত্রীদের উদ্ধারের জন্য বিশেষ বিমান৷ ১৭ জন যাত্রী নিয়ে বিশেষ ফ্লাইটটি ফিরে এসেছে। আহত ১৪ যাত্রী এখনো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বাকি আহত চার যাত্রী চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন। তবে দুর্ঘটনা কবলিত কোনও যাত্রীকে দেশে ফেরত আনা সম্ভব হয়নি।

বাংলাদেশের অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, বিমানের বিজি ১৬০-এ মোট ৩৩ আরোহী ছিলেন। তাদের মধ্যে দুজন পাইলট ও দুজন কেবিন ক্রু। যাত্রীরা অক্ষত আছেন। পাইলট ও যাত্রীদের চিকিৎসার জন্য ঢাকা থেকে চিকিৎসক পাঠানো হয়। অন্যদিকে ইয়াঙ্গনে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মঞ্জুরুল করিম চৌধুরী বলেন, আরোহীদের সবাই অল্প আহত হয়েছেন। এই দুর্ঘটনার পর ইয়াঙ্গুন বিমানবন্দরের ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়