ইসলামাবাদঃ  হাতে সময় খুবই কম। কাউন্ট ডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই উড়ে যেতে তৈরি বিমান। চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। আর ঠিক সেই সময়ে বিমানের ইমার্জেন্সির দরজা খুলে দিলেন এক মহিলা যাত্রী। তাঁর এই কান্ডে রীতিমত চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। অবস্থা এমন জায়গায় পৌঁছে যায় যে ওই সময়ে ফ্লাইট বাতিল পর্যন্ত করে দেওয়া হয়। কেন এই কাণ্ডটি ঘটিয়েছেন এয়ারহোস্টেসের এমন প্রশ্নে ওই মহিলা জানান, তিনি ইমার্জেন্সি দরজাকে টয়লেটে ঢোকার দরজা ভেবে ফেলেছিলেন। আর তা ভেবে ওড়ার ঠিক সেই সময়ে সেই দরজাটি ভুল করে খুলে দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

ম্যানচেস্টার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের রানওয়েতে দাঁড়িয়ে থাকা পাকিস্তান এয়ারলাইনসের (পিআইএ) একটি বিমানে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটে। পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের মুখপাত্রকে কোট করে পাকিস্তানের একাধিক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছেন, পাকিস্তান এয়ারলাইনসের পিকে ৭০২ বিমান একটু পরেই ইসলামাবাদের দিকে ছেড়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল। কিন্তু সেই সময়ে বিমানে থাকা এক মহিলা বাথরুমে যাওয়ার জন্যে খোঁজ করছিলেন। কিন্তু বাথরুমের খোঁজ করলেও বিমানে সেই সময় থাকা কোনও এয়ারহোস্টেসদের সাহায্য নেননি তিনি। আর তাই কেউ কিছু বুঝতেই পারেননি তিনি। হঠাত করেই টয়লেটের দরজা ভেবে বিমানের ইমার্জেন্সির দরজা খুলে ফেলেন বলে জানিয়েছেন পাকিস্তান এয়ারলাইন্সের ওই মুখপাত্র। তার এমন ভুলে ফ্লাইটটিকে সাত ঘন্টা পিছিয়ে দেওয়া হয় বলেও জানা গিয়েছে।

এই ঘটনায় প্রায় ৪০ যাত্রী এবং তাদের মালপত্র বিমান থেকে সরিয়ে ফেলা হয়। সমস্ত যাত্রীকে বিমানবন্দরের হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সাত ঘণ্টা পর পরবর্তী একটি বিমানে সমস্ত যাত্রীদের ইসলামাবাদে পাঠানো হয় বলে জানা গিয়েছে। ইতিমধ্যে এই ঘটনায় পূর্ণাঙ্গ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন পিআইএ প্রধান এয়ার মার্শাল আরশাদ মালিক। তদন্তের সময় ওই মহিলা স্বীকার করে নিয়েছেন যে, তিনি টয়লেট ভেবে ইমার্জেন্সি দরজা খুলে ফেলেছিলেন। তবে এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয়।