স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: স্বামীজীর আদর্শে দীক্ষিত হয়ে আদর্শ নাগরিক হয়ে উঠুক ছাত্রছাত্রীরা৷ পাশে দাঁড়াক সাধারণ মানুষের৷ শুক্রবার সন্ধ্যায় উত্তর ২৪ পরগনার খড়দহে রহড়া রামকৃষ্ণ মিশনের একটি অনুষ্ঠানে এই আবেদন করেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়৷

এদিন মিশনের বিবেকানন্দ সেন্টিনারি কলেজে স্বামী বিবেকানন্দের ১২ ফুটের ব্রোঞ্জের একটি মূর্তির আবরণ উন্মোচন করা হয়৷ উদ্বোধন করা হয় মা সারদা সভাকক্ষ ও কলেজের নতুন ভবনের৷

আরও পড়ুন: একটা শব্দ বাধাল ‘হইচই’

উদ্বোধনের পর শিক্ষামন্ত্রী পড়ুয়াদের সমাজের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান৷ একই সঙ্গে তাঁর আবেদন, বিদেশের চাকরি ছেড়ে বাঙালিরা বাংলায় ফিরুক৷ এ রাজ্যের উন্নতির হাল ধরুক৷

মন্ত্রী বলেন, ‘‘ইদানিং কলেজের ভালো ছাত্রেরা বেশি আত্মকেন্দ্রিক হয়ে পড়ছে। বৃদ্ধ মা বাবাকে ভুলে বিদেশে পরিবার নিয়ে চাকরি করে টাকা উপার্জনে তাঁরা ব্যস্ত। কিন্তু টাকা উপার্জনের সঙ্গে সঙ্গে মানবিকতা, সামাজিকতাও জীবনের একটি অংশ।’’

আরও পড়ুন: জলপাইগুড়িতে গোখরো সাপ উদ্ধার

তাই সেই সমস্ত যুবকদের বাংলায় ফেরার আহ্বান জানালেন মন্ত্রী। তাঁর কথায়, বাংলায় আগের থেকে অনেক বেশি চাকরির পরিবেশ তৈরি হয়েছে। সুতরাং বাংলার মেধা বাংলাতেই ফিরে আসুক।

শিক্ষা দফতরের ৫ কোটি টাকা অর্থ সাহায্যে ওই কলেজের এই নতুন ভবন গড়ে তোলা হল। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ছাড়াও হাজির ছিলেন রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের সাধারণ সম্পাদক স্বামী সুবীরানন্দজি মহারাজ, রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের ট্রাস্টি সদস্য স্বামী দিব্যানন্দজি মহারাজ, স্বামী বিমলাত্মানন্দজি মহারাজ এবং রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ শতবার্ষিকী কলেজের অধ্যক্ষ স্বামী কমলাস্থানন্দজি মহারাজ-সহ রহড়া রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ মিশনের কয়েকশো বর্তমান ও প্রাক্তন ছাত্ররা ও সমাজের গুণীজনরা।

আরও পড়ুন: অজয় নদে স্নান করতে নেমে তলিয়ে গেল যুবক

কলেজ কর্তৃপক্ষের দাবি, ভারতের মধ্যে এই প্রথম স্বামীজির এতবড় ব্রোঞ্জের মূর্তি স্থাপন করা হল। নতুন কলেজ ভবনের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত সারদা সভাকক্ষ ও আইসিকিউ অফিসেরও এদিন উদ্বোধন হয়।

এদিন পার্থবাবু শিক্ষাক্ষেত্রে রামকৃষ্ণ মিশনের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন৷ বলেন, ‘‘রামকৃষ্ণ মিশনের পঠনপাঠন নিয়ে কোনও দ্বিধা নেই। দেশের মধ্যে যে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জায়গা করে নিয়েছে, তাদের মধ্যে অন্যতম রামকৃষ্ণ মিশন। যে মিশন মানুষ তৈরি করে।’’

আরও পড়ুন: সরকারি প্রকল্পের অর্থ তছরুপে গ্রেফতার তৃণমূল নেতা

তবে বর্তমান সমাজে পড়ুয়ারা ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার হতেই বেশি চায় বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী৷ তাঁর আক্ষেপ, রাজনীতবিদ হওয়ার আগ্রহ কারও নেই। সব পেশাতেই বিতর্ক আছে। আবার অপকর্ম করারও কিছু লোক আছে। কিন্তু সেইসব আবর্জনাকে দূরে ফেলে দিয়ে নতুন সমাজ গঠনে ছাত্র সমাজকেই এগিয়ে আসতে হবে। যে সুস্থ সমাজ গঠনের কথা বলেছিলেন স্বয়ং স্বামীজি।

শিক্ষামন্ত্রীর হাত দিয়ে এই রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ শতবার্ষিকী কলেজের তিনজন দুঃস্থ ছাত্রকে কলেজ কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে আর্থিক সাহায্য প্রদান করা হয়। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত বারাকপুরের পুলিশ কমিশনার রাজেশ সিংকে সংবর্ধিত করে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন: দেখে নিন, সেনগুপ্ত পরিবারে গনপতি পুজোর অ্যালবাম