কলকাতা: এই প্রথমবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের নির্বাচনে ভাল ফল করেছে বিজেপির ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ বা এবিভিপি। বিজেপির ছাত্র সংগঠনের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো তথাকথিত লাল দুর্গে দাঁত ফোটানো নিয়ে রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে। যাদবপুর বিশ্ববিদ্য়ালয়ে এবিভিপির উত্থানে পরোক্ষে বামেদেরই দায়ী করেছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

এবারই প্রথম প্রার্থী দিয়ে যাদবপুরে আশাতীত সাফল্যের মুখ দেখেছে অখিল ভারতীয় বিদ্য়ার্থী পরিষদ। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে এসএফআই-কে টপকে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে এভিবিপি। যদিও সেই বিভাগে শেষ পর্যন্ত প্রথম স্থান পায়নি এবিভিপি।

প্রথম স্থানে রয়েছে অতি বামপন্থী সংগঠন বলে পরিচিত ডিএসএফ। যাদবপুরের কলা বিভাগেও দুটি আসন পেয়েছেন এবিভিপির প্রার্থীরা। যদিও কলা বিভাগের ছাত্র সংসদ ফের একবার সিপিএমের ছাত্র সংগঠন এসএফআই-র দখলেই রয়েছে।

এদিকে, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে এই প্রথম বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপির সাফল্য নিয়ে পরোক্ষে বাম মনোভাবাপন্ন ছাত্রছাত্রীদেরই দায়ী করেছেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এই প্রসঙ্গে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন,‘যাঁরা নিজেদের বামপন্থী বলে পরিচয় দেন এবার তাঁদেরই ভাবা উচিত ক্যাম্পাসে কীভাবে এভিবিপি ঢুকল।’

তবে যাদবপুরে এভিবিপির আসন পাওয়াকে বিশেষ আমল দিতে নারাজ পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল মহাসচিব বলেন, ‘এবিভিপির কয়েকটি আসন জেতাকে গুরুত্ব দেওয়ারও কিছু নেই। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ বরাবরই বামপন্থী ছাত্র-ছাত্রীদের দখলে থাকে। এবিভিপি দুটো আসন জিতেছে, এই নিয়ে লাফানোর কিছু নেই। ।’

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে এই প্রথম সাফল্যের মুখ দেখায় স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বও। যাদবপুরের ছাত্র সংসদের নির্বাচনে এবিভিপির ভোট-বৃদ্ধি নিয়ে খুশি বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। আবারও যাদবপুরের বাম মনোভাবাপন্ন পড়ুয়াদের কড়া সমালোচনায় সরব হয়েছেন দিলীপ। তাঁদের বিঁধে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘যাদবপুরে ভারতের সংবিধানের বিরুদ্ধে আওয়াজ উঠেছে। তাই যাঁরা এই অবস্থার পরিবর্তন চান তাঁরা বিজেপিতে আসতে চাইছেন।’

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা