ভুবেনশ্বর: সাত সকালে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল ভুবনেশ্বরের বিজু পট্টনায়েক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের একাংশ। শনিবার সকালে বিমান বন্দরের ১ নম্বর টার্মিনাল এবং ২ নম্বর টার্মিনালের সংযুক্তকারী ছাদটি ভেঙে পড়ে। এই ঘটনায় ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়ে মৃত্যু হয়েছে একজন নির্মাণকারীর। এবং গুরুতর আহত অবস্থায় আরও একজন স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এদিন তখন সবেমাত্র ভোরের আলো ফুটছে। আচমকাই ভুবনেশ্বর বিমানবন্দরের যাত্রীদের মধ্যে পড়ে যায় হুড়োহুড়ি। ১ নম্বর টার্মিনাল এবং ২ নম্বর টার্মিনালের সংযুক্তকারী ছাদটি হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায় জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী, দমকল বাহিনী এবং উদ্ধারকারী দল। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় শুরু হয় উদ্ধারকাজ।

তবে ততক্ষণে ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়ে মৃত্যু হয় এক নির্মাণকর্মীর। অন্তর্যামী গুরু নামে ওই ব্যক্তি বিমানবন্দরের নির্মাণ কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। আচমকা কিছু বুঝে ওঠার আগে হুড়মুড়িয়ে বিমানবন্দরের নির্মীয়মাণ অংশটি ভেঙে পড়ে। ঘটনাস্থলেই চাপা পড়ে মারা যান ওই নির্মাণ কর্মী। শুধু তাই নয়, জানা গিয়েছে এই দুর্ঘটনায় আরও ১ জন শ্রমিক গুরুতর জখম হয়েছেন। তিনি বর্তমানে ভুবনেশ্বরের এক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
উদ্ধারকারী দলের সদস্য প্রদীপ জানা বলেন, ”আর কেউ ধ্বংসস্তূপের নীচে চাপা পড়ে নেই বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে এখনও দুর্ঘটনাস্থলে তল্লাশি চলছে।”

এদিকে কী কারণে ভুবনেশ্বর বিমানবন্দরের নির্মীয়মাণ অংশটি ভেঙে পড়ল, তা নিয়ে উপরি মহলে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। বরাত নিয়ে যে সংস্থা এই কাজ করছিল, তাদের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে। আপাতত দুর্ঘটনাস্থলটি ঘিরে রাখা হয়েছে। শুধু তাই নয়, নিরাপত্তার স্বার্থে দুর্ঘটনাগ্রস্ত জায়গার দিকে যেতে দেওয়া হচ্ছে না যাত্রীদের।