স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: মর্মান্তিক! মানসিক ভারসাম্যহীন সন্তানের হাতে খুন হতে হল বাবা-মাকে। জানা গিয়েছে,মাঝরাতে বাবা-মায়ের ঘরে ঢুকে ঘুমন্ত অবস্থায় তাঁদের মাথায় ডাসা দিয়ে আঘাত করে ওই মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে।পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হলে সেখানেই দুজনের মৃত্যু হয় বলে জানা গিয়েছে। আর এই ঘটনায় অভিযুক্ত তাঁদের একমাত্র মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে। পুলিশ জানিয়েছে, মানসিক ভারসাম্যহীন ওই যুবকের নাম অমিত সাহা।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার ঘোলা থানার অন্তর্গত নাটাগড় কৃষ্ণপুর বাই লেন এলাকায় । পুলিশ জানিয়েছে, মৃত বৃদ্ধ বাবার নাম সুনীল সাহা (৬৫) এবং মা শেফালী সাহা (৬০) । তাদের একমাত্র ছেলে অভিযুক্ত অমিত সাহা মঙ্গলবার মধ্য রাতে দরজার ডাসা দিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় তাঁদের ঘরে ঢুকে অভিযুক্তের মা শেফালী সাহা এবং বাবা সুনীল সাহাকে সজোরে মাথায় আঘাত করে খুন করে বলে অভিযোগ ।

যদিও এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মানসিক ভারসাম্যহীন ওই যুবককে গ্রেফতার করেছে ঘোলা থানার পুলিশ।

স্থানীয় প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, অভিযুক্ত অমিত সাহা অনেক দিন ধরেই মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল। তাঁর চিকিৎসাও চলছিল। তাঁরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার মাঝরাতে হঠাৎ করে তাঁরা প্রতিবেশী সুনীল সাহার বাড়ি থেকে চিৎকার চেঁচামেচির আওয়াজ শুনতে পান তাঁরা। তাঁদের চিৎকারে সুনীল সাহার বাড়ির দিকে ছুটে যান তাঁরা।

জানা গিয়েছে, ঘরে ঢুকতেই দেখা যায় মেঝেতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে কাতরাচ্ছেন ওই বৃদ্ধ দম্পতি। তখনই সঙ্গে সঙ্গে খবর যায় ঘোলা থানায়। সূত্রের খবর, পরে পুলিশ এসে ঘরের ভিতর থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে তাঁদেরকে হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। জানা গিয়েছে, পানিহাটি স্টেট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন ডাক্তাররা।

এদিকে মর্মান্তিক এই খুনের ঘটনায় নাটাগড় কৃষ্ণপুর বাইলেন এলাকা জুড়ে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। বর্তমানে ঘোলা থানার পুলিশের হেপাজতে রয়েছে অভিযুক্ত যুবক অমিত সাহা। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার তীব্র নিন্দা করে সুনীল বাবুর পাড়া প্রতিবেশীরা অভিযুক্তের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে তাঁরা এবং দেহ দুটিকে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।