সিঙ্গাপুর: মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে রচিত হল দু’টি বিশ্বরেকর্ড৷ অবশ্য দু’টি না বলে একই রেকর্ড দু’জনের দখলে গেল বলাই শ্রেয়৷ এমন এক রেকর্ড, যা কিনা বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, স্টিভ স্মিথদের মতো রথি-মহারথিদেরও নেই৷ নেপালের অধিনায়ক পরশ খাড়কা ও শ্রীলঙ্কার মহিলা ক্রিকেট দলের ক্যাপ্টেন চামারি আতাপাত্তু বিরাটদের অধরা সেই বিশ্বরেকর্ড গড়লেন অনায়াসে৷

আরও পড়ুন: দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ভারতের তৃতীয় টি-২০ ম্যাচ পরিত্যক্ত

সিঙ্গাপুরের ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন গ্রাউন্ডে ত্রি-দেশীয় টি-২০ সিরিজে সিঙ্গাপুরের বিরুদ্ধে ম্যাচে ৫২ বলে ১০৬ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন পরশ৷ তিনি ৭টি চার ও ৯টি ছক্কা মারেন৷ মূলত ক্যাপ্টেনের ব্যাটে ভর করেই সিঙ্গাপুরকে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে পরাজিত করে নেপাল৷

আরও পড়ুন: পাক ক্রিকেটারদের কড়া দাওয়াই ধাওয়ানের

প্রথমে ব্যাট করে সিঙ্গাপুর ২০ ওভারে ৩ উইকেটের বিনিময়ে ১৫১ রান তোলে৷ জবাবে নেপাল ১৬ ওভারে ১ উইকেটের বিনিমেয় ১৫৪ রান তুলে ম্যাচ জিতে যায়৷ অনবদ্য শতরান করে পরশ রেকর্ড বইয়ে নিজের নাম তুলে ফেলেন৷ নেপালের হয়ে প্রথম আন্তর্জাতিক টি-২০ শতরান করা ছাড়াও রান তাড়া করতে নেমে বিশ্বের প্রথম ক্যাপ্টেন হিসাবে অন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব অর্জন করেন তিনি৷ কোহলি, রোহিত, স্টিভ স্মিথরাও রান তাড়া করার সময় দলকে নেতৃত্ব দিতে নেমে শতরান করতে পারেননি৷

আরও পড়ুন: পরিত্যক্ত ইস্টবেঙ্গল ম্যাচ, জোড়া গোলে ম্যাচ জিতেও লিগ জয়ের অপেক্ষা দীর্ঘায়িত পিয়ারলেসের

নেপাল অধিনায়ক এমন নজির গড়ার কয়েক ঘণ্টা পরেই শ্রীলঙ্কার মহিলা ক্যাপ্টেন চামারি আতাপাত্তু নেপাল অধিনায়কের রেকর্ডে ভাগ বসান৷ সিডনিতে অস্ট্রেলিয়ার গড়া ৪ উইকেটে ২১৭ রান তাড়া করতে নেমে আতাপাত্তু ৬৬ বলে ১১৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন৷ যদিও শ্রীলঙ্কা আটকে যায় ৭ উইকেটে ১৭৬ রানে৷ ৪১ রানে ম্যাচ জেতে অস্ট্রেলিয়া৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও