প্রতীতি ঘোষ,বারাসত : নৈহাটি সমবায় ব্যাংকের ১১ কোটি ৩৪ লক্ষ টাকা তছরুপের অভিযোগে শুক্রবার রাতে গ্রেফতার হন সাংসদ অর্জুন সিং এর ভাইপো পাপ্পু সিং ওরফে সঞ্জিত সিং।

বারাকপুরের গোয়েন্দা বিভাগের আধিকারিকরা অর্জুন সিং ঘনিষ্ঠ পাপ্পু সিংকে গ্রেফতার করেন। শনিবার অর্জুন সিংয়ের ঘনিষ্ঠ আত্মীয় সঞ্জিত সিং ওরফে পাপ্পু সিংকে বারাসাত আদালতে তোলা হলে বিচারক তাকে ১০ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন।

বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের গোয়েন্দা বিভাগ শুক্রবার গভীর রাতে পাপ্পু সিংকে গ্রেফতার করেন। পাপ্পু সিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ সে ভাটপাড়া নৈহাটি সমবায় ব্যাংকে আর্থিক প্রতারণার ঘটনায় প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত।

বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রের খবর, পাপ্পু সিং ১১ কোটি টাকা তছরুপের ঘটনায় জড়িত।

পাপ্পু সিংয়ের গ্রেফতারি প্রসঙ্গে সাংসদ অর্জুন সিং বলেন, “বারাকপুর গোয়েন্দা বিভাগ ওকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে বলে নোটিশ জারি করে ডেকে পাঠিয়েছিল। তা দেখেই ও দেখা করতে যায়, তখনই পুলিশ ওকে গ্রেফতার করে । পুলিশ এখন চাইছে আমার যত কাছের লোক আছে, হয় তাদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেবে না হলে খুন করে ফেলবে। এভাবে কতদিন চালাবে ?”

তিনি আরও দাবি করে বলেন, “মণীশ খুনের ঘটনায় সিআইডি তৃণমূল নেতাদের কথায় আমাকে ফাঁসাতে চাইছে । ওরা আপ্রাণ চেষ্টা করছে আমাকে ফাঁসাতে । সেইজন্য আমি বারবার সিবিআই তদন্তের দাবি করছি ।”

অন্যদিকে এদিন বারাসাত কোর্টের সরকার পক্ষের আইনজীবী সাংবাদিকদের বলেন, “অভিযুক্ত পাপ্পু সিং কে ভাটপাড়া নৈহাটি সমবায় ব্যাংকের আর্থিক প্রতারনা মামলায় এর আগে বহু বার তলব করা হয়েছিল কিন্তু তিনি আসেননি এবং গোয়েন্দাদের সঙ্গে তদন্তে সহযোগিতা করেননি। অবশেষে তিনি যখন শুক্রবার আসেন তখন তার বিরুদ্ধে আনা আর্থিক প্রতারনার অভিযোগ গুলি খন্ডাতে পারেননি। গোয়েন্দাদের প্রশ্নের উপযুক্ত জবাব দিতে পারেননি তাই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্ত পাপ্পু সিং এর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বিভিন্ন সময়ে যে লক্ষ লক্ষ টাকা ঢুকেছে সেগুলি কোথা থেকে এসেছে তার কোনও সদুত্তর অভিযুক্ত দিতে পারেননি বলে দাবি। সেই সঙ্গে বিভিন্ন পুরসভার বিভিন্ন কাজ করবার নাম করে সরকারের বহু অর্থ এই সমবায় ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে অভিযুক্তের অ্যাকাউন্টে। কিন্তু সেই কাজগুলো আদেও হয়েছে কি না তাও সঠিক ভাবে দেখাতে পারেননি অভিযুক্ত পাপ্পু সিং। সরকারের সেই টাকা গুলো যদি ব্যাংকে থাকতো তাহলে আজ অনেক গরীব মানুষ উপকৃত হতে।এই সমস্ত কিছুর অভিযোগের ভিত্তিতে পাপ্পু সিংকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং শনিবার তাকে বিচারপতি ১০ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন।”

শনিবার দুপুরে ধৃত পাপ্পু সিংকে বারাসাত কোর্টে তোলার সময় পাপ্পু সিং সাংবাদিকদের বলেন, “আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।আমার অ্যাকাউন্টে কোনও টাকা ঢোকেনি। ভাটপাড়া তৃণমূলের নেতা সোমনাথ শ্যাম ও মাকসুদ আলম আমায় চক্রান্ত করে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়েছে।”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।