মুম্বই:৩ ডিসেম্বর থেকে দিল্লিতে শুরু হচ্ছে পৃথিবীর সবথেকে বড় কাগজ শিল্প সংক্রান্ত অনুষ্ঠান ‘পেপার-এক্স ২০১৯’। চলবে ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত। সেখানে বাংলার জন্য বিশেষ প্যাভিলিয়ন থাকছে। সেখানে অংশ নিচ্ছে ২৯টি কল এবং বড় বড় বেশ কয়েকটি সংস্থা। এর মধ্যে রয়েছে আইটিসি পেপার, ইমামি পেপার, ওয়েস্ট কোস্ট পেপার, বিআইএলটি। বাংলার ৩০০–র বেশি ছোট এবং ক্ষুদ্র সংস্থা প্রথমবারের জন্য অংশ নিতে চলেছে ।

এ রাজ্যে ৩২টি কাগজ কল রয়েছে। সেখানে বার্ষিক উৎপাদনের পরিমাণ ২১ লক্ষ টন। ৩ বছরে দেশের কাগজ রপ্তানি ৬,৬৬,০০০ টন থেকে বেড়ে ১৫,০০,০০০ টন হয়েছে। বিটুবি সভায় পরিবেশ, সবুজ রক্ষা এবং পুনর্ব্যবহার নিয়ে বিশেষ ভাবে আলোচনা করা হবে। এদিকে আগামী ৫ বছরে ভারতে কাগজ শিল্প ১২ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পাবে এবং ২০২৪–২৫ সালে কাগজের ব্যবহার ১৫ মিলিয়ন টন থেকে বেড়ে ২৪ মিলিয়ন টন হবে।

মুম্বইতে সাংবাদিক সম্মেলনে ইন্ডিয়ান পেপার অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন এবং সেঞ্চুরি পেপারের সিইও জে পি নারায়ণ জানিয়েছেন,কাগজ শিল্প একটা পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। বেশ কয়েকটি বড় সংস্থা তাদের ব্যবসা আরও বাড়াতে চাইছেন। যাতে চাহিদা মতো তাদের পণ্যের জোগান অব্যাহত থাকে। এখন বছরে ১৫ মিলিয়ন টন কাগজের দরকার হয়। ২০২৪–২৫ সালে কাগজের ব্যবহার বেড়ে ২৪ মিলিয়ন টন হবে।

তাঁর আশা, সব সংস্থা আরও একত্রিত ভাবে কাজ করবে। সেইসঙ্গে এই শিল্পকে আরও শক্তিশালী করতে আরও একত্রীকরণ এবং অধিগ্রহণ হবে বলে মনে করছেন তিনি। এই শিল্পে লোকবল খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাই আরও কাজের সুযোগ হবে বলে মনে করছেন।দেশের উন্নয়নে এই শিল্প খুব গুরুত্বপূর্ণ জায়গা করে নিয়েছে। ছাপা, লেখা, প্যাকেজিং, প্রকাশনা, নোটবুক এবং স্টেশনারি জিনিসপত্র সরবরাহ করতে পারা যাবে৷