চেন্নাই: সাম্প্রতিককালে টিম ইন্ডিয়ার টপ অর্ডারের তিন জন ব্যাটসম্যান একসঙ্গে ব্যর্থ হয়েছেন, এমন ছবি সচরাচর দেখা যায়নি। ওয়ান ডে ক্রিকেটে ভারত প্রতিপক্ষের সামনে যত বড়ই লক্ষ্য ঝুলি এদিক না কেন, অথবা যত বড় টার্গেটই তাড়া করুক না কেন, টপ অর্ডারের অভিজ্ঞ কোনও তারকা ব্যাট হাতে নেতৃত্ব দিয়েছেন দলের ইনিংসকে। চেন্নাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে ম্যাচে খানিকটা সেই রকম বিরল ছবি চোখে পড়ে। তবে কলিদের পরবর্তী প্রজন্ম বুঝিয়ে দেয়, দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত তারা।

ইনিংসের সপ্তম ওভারে কটরেলের বলে আউট হন ওপেনার লোকেশ রাহুল (৬) ও তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামা বিরাট কোহলি (৪)। ৭ ওভারের শেষে ভারতের দলগত স্কোর ছিল ২ উইকেটে ২৫ রান। চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে শ্রেয়স আইয়ার রোহিত শর্মার সঙ্গে জুটি বাঁধেন। তৃতীয় উইকেটের জুটিতে ৫৫ রান যোগ করে প্রাথমিক বিপর্যয় রোধ করেন দু’জনে। তবে হিটম্যান সেট হওয়ার পর নিজের ইনিংসকে খুব বেশি দূর টেনে নিয়ে যেতে পারেননি। ব্যক্তিগত ৩৬ রানে আউট হয়ে বসেন তিনি।

১৯তম ওভারে রোহিত যখন সাজঘরে ফেরেন তখন ভারতের স্কোর ৩ উইকেটে ৮০ রান। স্বাভাবিকভাবেই অনভিজ্ঞ মিডল ও লোয়ার অর্ডার ধসে পড়ার সম্ভাবনা ছিল ম্যাচে। তা হয়নি দুই তরুণ তুর্কি শ্রেয়স ও ঋষভ পন্ত ইনিংসের হাল ধরায়। চতুর্থ উইকেটের জুটিতে দু’জনে মিলে ১১৪ রান যোগ করেন। শেষে আইআর সাজঘরে ফেরেন ৭০ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে। ৮০ বলের নির্ভরযোগ্য ইনিংসে শ্রেয়স বুঝিয়ে দেন কুম্বলের মতো জহুরীরা কেন তাঁকে ব্যাটিং অর্ডারের চার নম্বরে সেরা বিকল্প বলে মনে করছেন।

বেশ কিছুদিন হল ব্যাট হাতে নজর কাড়তে ব্যর্থ ঋষভ পন্ত দারুণ পরিণতিবোধ দেখান এই ম্যাচে। চাপে থাকা সত্বেও স্বভাবসুলভ আগ্রাসন ধরে রেখে দায়িত্ব সহকারে দলের ইনিংসকে টেনে নিয়ে যান তিনি। ওয়ান ডে কেরিয়ারের প্রথম হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করলেও পন্তের সামনে সুযোগ ছিল নিজের ইনিংসকে তিন অঙ্কে টেনে নিয়ে যাওয়ার। ব্যক্তিগত ৭১ রানে আউট হয়ে বসায় সে সুযোগ হাতছাড়া করেন ঋষভ।

ব্যক্তিগত শতরান পূর্ণ করতে না পারলেও চাপের মুখে ভারতীয় ইনিংসকে নির্ভরতার দেন দুই তরুণ ব্যাটসম্যান। ব্যাটিং অর্ডারের চার ও পাঁচ নম্বরে শ্রেয়স ও ঋষভের অনবদ্য হাফ-সেঞ্চুরি বুঝিয়ে দেয়, আর যাই হোক ভারতীয় ব্যাটিং এখন আর কোহলি নির্ভর নয়।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

Tree-bute: রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও