নয়াদিল্লি: পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা নিয়ে সংশয়ের জেরে জম্মু-কাশ্মীরে পিছিয়ে গেল পঞ্চায়েত ভোট। পূর্ব নির্ধারিত সময়ের থেকে প্রায় ১ মাস পর্যন্ত ভোট পিছিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে ঠিক কবে নাগাদ উপত্যকায় পঞ্চায়েত ভোট অনুষ্ঠিত হবে তা নিয়ে এখনও স্পষ্ট করে কিছু জানায়নি নির্বাচন কমিশন। ভূস্বর্গে নির্বাচনের নয়া নির্ঘণ্ট পরে প্রকাশ করবে কমিশন।

আগামী ৫ মার্চ থেকে মোট ৮ দফায় জম্মু-কাশ্মীরে পঞ্চায়েত উপনির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা নিয়ে সংশয় থাকার জেরে আপাতত ওই দিনে ভোট শুরু হচ্ছে না। মঙ্গলবার রাতে বিবৃতি দিয়ে উপত্যকায় ভোট পিছিয়ে দেওয়ার কথা জানিয়েছেন মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক শৈলেন্দ্র কুমার। জম্মু-কাশ্মীরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে থাকা একাধিক সংস্থা থেকে পাওয়া রিপোর্টের ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত কমিশনের।

কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, নিরাপত্তা সংস্থাগুলি থেকে পাওয়া রিপোর্টের ভিত্তিতে দেখা গিয়েছে, ৫ মার্চ থেকে উপত্যকায় পঞ্চায়েত উপনির্বাচন শুরু করার জন্য পর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়। সেই মতো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সুপারিশ মেনেই আপাতত উপনির্বাচনের দিন পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন।

জানা গিয়েছে প্রায় ১ মাস পর্যন্ত ভোট পিছিয়ে যেতে পারে জম্মু-কাশ্মীরে। সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনার পরই উপত্যকায় ভোটের নয়া নির্ঘণ্ট প্রকাশ করবে নির্বাচন কমিশন। জম্মু-কাশ্মীরের সাড়ে ১২ হাজারেরও বেশি আসনে ৫ মার্চ থেকে ৮ দফায় উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। মুখ্য নির্বাচন কমিশানারের দফতর থেকে জানানো হয়েছে, সব কিছু খতিয়ে দেখে, ২-৩ সপ্তাহের মধ্যে নয়া নির্বাচনী নির্ঘণ্ট প্রকাশ করার চেষ্টা হচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ