জলপাইগুড়ি:  লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে গেরুয়া ঝড়। এক ধাক্কায় বাংলায় লোকসভা আসন ১৯টিতে পৌঁছে যায় বিজেপির। ফলাফল প্রকাশের পর দেখা যায় বাংলার একাধিক বিধানসভা কেন্দ্রে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। যা কিনা যথেষ্ট চিন্তার ভাঁজ পড়ে শাসকদল তৃণমূলের কপালে। বাংলায় বিজেপির এহেন ফলাফল সামনে আসার পরেই তৃণমূল থেকে বহু বিধায়ক বিজেপির হাত ধরে। শুধু তাই নয়, তৃণমূলের হাত ছাড়া হয় বহু পঞ্চায়েত, পুরসভাও।

যদিও সময় ঘুরতেই পালটা বিজেপিকে কৌশলী চাল শাসকদল তৃণমূলের। একের পর এক হাতছাড়া হওয়া পুরসভাগুলিকে ফের নিজেদের আয়ত্তে নিয়ে আসে তৃণমূল কংগ্রেস। শুধু তাই নয়, হাতছাড়া হওয়া পঞ্চায়েতগুলিকেও ফের বিজেপির হাত থেকে ছিনিয়ে নিচ্ছে শাসকদল। ফলে ফের একবার একের পর এক পঞ্চায়েত তৃণমূলের দখলে আসছে। তেমন সোমবার নিশিগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েত ফের পুনর্দখল করল তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের হাত থেকে নিশিগঞ্জ ১ গ্রাম পঞ্চায়েতটি ছিনিয়ে নিয়েছিল বিজেপি। কিন্তু সময় ঘুরতেই ফের সেটি নিজেদের দখলে নিল তৃণমূল।

জানা গিয়েছে, লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর নিশিগঞ্জ ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানসহ ১১ জন তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য বিজেপিতে যোগ দিলে ওই গ্রাম পঞ্চায়েত বিজেপির দখলে চলে যায়। এদিন রাজ্যের মন্ত্রী বিনয়কৃষ্ণ বর্মন সহ স্থানীয় তৃণমূল নেতা মোসলেম মিয়াঁ, মোজাফ্ফর রহমান প্রমুখের উপস্থিতিতে গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান নিরঞ্জন দাস সহ পঞ্চায়েত সদস্যরা ফের তৃণমূলে যোগ দেন। আর তাদের যোগদানের পরেই এই পঞ্চায়েতটি বিজেপির হাতছাড়া হল।

রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি বিনয়কৃষ্ণ বর্মণ জানিয়েছেন, মানুষ এখনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের পক্ষেই রয়েছে। ভুল বুঝিয়ে সবাইকে বিজেপিতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেখানে সবাই হাঁপিয়ে উঠেছিল। আর তাই দলেই ফিরলেন তাঁরা। অন্যদিকে, বিজেপির দাবি, পুলিশ-প্রশাসনের ভয় দেখানো হচ্ছে। মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। আর এভাবেই বিজেপিকে ভাঙানোর খেলা তৃণমূল শুরু করেছে বলে দাবি স্থানীয় নেতৃত্বের। তবে মানুষ এর জবাব আগামিদিনে ভোট বাক্সে দেবে বলেই জানিয়েছে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব।