স্টাফ রিপোর্টার, হলদিয়া: ছ’জন মহিলার মাধ্যমে চলছে একটি গ্রামপঞ্চায়েত৷ আর এই ছয়জন মহিলারাই গ্রাম-পঞ্চায়েতের উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে৷ নারী ও পুরুষদের সমান অধিকারের জন্য নারীদের গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার৷ কিন্তু নারীদের সম্মান ও তাদের অধিকার দেওয়ার এক অন্য চিত্র উঠে আসল হলদিয়ার সুতাহাটায়৷ পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় মোট ২২৩ টি গ্রামপঞ্চায়েত রয়েছে৷ তার মধ্যে একমাত্র হলদিয়ার সুতাহাটার ব্লকের আশদতলা গ্রাম-পঞ্চায়েতটি শুধুমাত্র মহিলা দ্বারা পরিচালিত৷

এই গ্রামপঞ্চায়েত মোট সদস্য সংখ্যা ছয়৷ প্রত্যেকেই মহিলা সদস্যা৷ পুরুষদের পাশাপাশি মহিলারাও উন্নয়ন করতে পারে তা দেখিয়ে দেওয়ার জন্য ছয় সদস্যা গুরু দায়িত্ব তাঁদের কাঁধে তুলে নিয়েছেন৷ প্রধানের দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন শিবানী বাখুলী, আর উপপ্রধান পদে রয়েছেন রাধা মণ্ডল মাজি। এছাড়াও যে চারজন সহযোগী রয়েছেন তাঁরা হলেন নমিতা সুকুল, রানু মিশ্র, মিনাক্ষী ভূঁইয়া ও মহুয়া পাল৷

এই গ্রামপঞ্চায়েত এলাকায় ভোটার সংখ্যা কিন্তু একেবারেই কম নয়৷ প্রায় এগারো হাজার ভোটার রয়েছে এই গ্রামপঞ্চায়েতে৷ তাঁদের পানীয়জল, রাস্তাঘাট, স্বাস্থ্য, শিক্ষা এমনকি কর্মের বিকাশের জন্য নানা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন এই ছ’জন মহিলা৷ ব্লক, জেলার সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই এলাকার উন্নয়ন করতে চায় শিবানীদেবীরা। তাঁরা জানান, একটা সংসার সুন্দর ও সুখের গড়ে তুলতে যেমন মহিলার অবদান অনস্বীকার্য, তেমনি এলাকার উন্নয়নেও তাঁরা পিছু হটতে পারে না৷ সংসারের পর অতিরিক্ত সময়ে এলাকার উন্নয়ন করতে চায় তাঁরা সকলে৷

মহিলা পরিচালিত গোটা গ্রামপঞ্চায়েত৷ এই ঘটনার পর জেলায় নজির তৈরি করেছেন তাঁরা৷ এলাকাবাসীদের বক্তব্য, স্থানীয়দের পুরো আস্থা রয়েছে এই ছয় মহিলার উপর৷ এলাকার সকলেই তাঁদের কাজে খুশি৷ বাসিন্দাদের বিশ্বাস এই ছয় মহিলারাই পারবেন এলাকার মানুষের সঙ্গে থেকে পাশে থেকে এলাকার উন্নয়ন করতে৷

এই ধরনের চিন্তাভাবনাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন ওই গ্রামের প্রত্যেক বাসিন্দা৷ পাশাপাশি অন্যান্য গ্রাম-পঞ্চায়েতের সদস্যরাও এই ছয় মহিলা সদস্যকে শুভেচ্ছা বার্তা জানিয়েছেন৷ তাঁদের কথায়, নারী পুরুষে কোনও ভেদাভেদ নেই৷ একজন পুরুষ যে কাজ করতে পারে একজন নারীও সেই কাজে কোনও অংশে কম নয়৷ তার আদর্শ উদাহরণ এই হলদিয়ার সুতাহাটার ব্লকের আশদতলা গ্রামপঞ্চায়েতটি৷