স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: দেশের শীর্ষ আদালতে রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচনের রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই সবুজ আবির নিয়ে বিজয়োৎসবে মাতলো শাসক দল। আবির খেলার সঙ্গে চললো দেদার মিষ্টি মুখও। বাঁকুড়ার জেলার উত্তর থেকে দক্ষিণ, পূর্ব থেকে পশ্চিম সর্বত্রই তৃণমূল নেতা কর্মীদের উচ্ছাসের এক ছবি।

বাঁকুড়া জেলা পরিষদের ‘বিদায়ী’ সভাধিপতি ও জেলা তৃণমূল নেতা অরুপ চক্রবর্ত্তী বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাধারণ মানুষের জন্য যে উন্নয়নের কাজ করছেন বিরোধীদের তা সহ্য হচ্ছেনা। তারা চাইছে যেনতেন প্রকারে এই উদ্যোগকে স্তব্ধ করতে। এই কারণেই তারা আদালতে গেয়েছিল। সুপ্রিম কোর্টের রায়ে প্রামাণ হলো তাদের অভিযোগের কোন ভিত্তি নেই।

আরও পড়ুন: সবুজ আবির, ঢাকের বাদ্যিতে তৃণমূল কর্মীদের উচ্ছাস

সিপিএমের বাঁকুড়া জেলা সম্পাদক অজিত পতি বলেন, ‘‘এবার পঞ্চায়েত ভোটে গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে পারেননি সাধারণ মানুষ৷ এবার মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে আনতে সাধারণ মানুষকে সঙ্গে নিয়ে সারা রাজ্যের সঙ্গে এই জেলাতেও জাঠা কর্মসূচীর মাধ্যমে আন্দোলন হবে।’’

‘‘সদ্য সমাপ্ত পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাজ্য সরকারের ‘নগ্ন রুপ’ প্রকাশ পেয়েছে’’ বলে দাবী করেন বিজেপি নেতা সোমনাথ রায়চৌধুরীর। তিনি বলেন, ‘‘সংবাদমাধ্যমের সৌজন্যে সবাই দেখেছেন দুষ্কৃতিদের সঙ্গে নিয়ে শাসক দল কিভাবে ভোট ও তার আগে সন্ত্রাস চালিয়েছে। সাধারণ মানুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেনি। রাজ্য সরকারের এখানেই পরাজয় স্বীকার করে পূণরায় ভোট করা উচিৎ ছিল৷’’

আরও পড়ুন: আদালতের রায় গণতন্ত্রের জয়: পার্থ চট্টোপাধ্যায়

রাজনীতির ময়দানে শাসক বিরোধী কথার মারপ্যাঁচ থাকবে৷ কিন্তু আদলতের রায়ে আপাতত অ্যাডভানটেন জোড়া ফুলের৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও