মুম্বই: করোনা পরবর্তী সময়ে ক্রমেই সামনে এসেছে একের পর এক অপরাধ। যা অবাক করেছে সাধারণ মানুষকে। তবে সম্প্রতি থানে মিউনিসিপাল ট্রান্সপোর্ট এর এক কনডাক্টরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গোপন মুহূর্তের ভিডিও রেকর্ড করে এবং তা পর্ণ সাইটে টাকার বিনিময়ে বিক্রি করে দিয়েছিল ওই ব্যক্তি। করোনা পরবর্তী সময়ে ক্রমেই তীব্র হয়ে উঠেছে সাইবার অপরাধ। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে বিস্তারিত তদন্ত।

ওই ঘটনার সঙ্গে অভিযুক্ত বাস কনডাক্টর ছাড়াও কোন ব্যক্তি যুক্ত রয়েছে কিনা তা জানার জন্যই শুরু হয়েছে তদন্ত। ১৮ এবং ৩০ বছর বয়সী দুই মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতেই পুলিশের তরফে অভিযুক্ত কনডাক্টরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্ত কনডাক্টরের নাম মিলিন্দ জাদে। ৩২ বছর বয়সী ওই কনডাক্টর যথেষ্ট শিক্ষিত বলেও জানা গিয়েছে।

নির্যাতিতা দুই মহিলার অভিযোগ করার পর থেকেই গত জুলাই থেকে ওই ব্যক্তি পলাতক ছিল। অবশেষে বিক্রমগড় এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেফতার করে বইসার পুলিশ। জানা গিয়েছে বিবাহিত হওয়া সত্ত্বেও অভিযুক্ত জাদে ওই দুই মহিলার সঙ্গে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস করেন। আর তা রেকর্ড করে পর্ণ সাইটে টাকার জন্য বিক্রি করে দেন।

পুলিশের তরফে জানা গিয়েছে ২০১৯ সালের জুন থেকে নভেম্বরের মধ্যে এই ভিডিও বিক্রি করেই সে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আয় করেছিল। অভিযুক্ত জাদেরের থেকে প্রায় ৬২ টি ভিডিও ক্লিপ বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ। ওই সকল ক্লিপ পর্ণ সাইটে আপলোড করা হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে।

পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে তারা বাকি নির্যাতিতাদের খোঁজ করার চেষ্টা চালাচ্ছে। ওই ভিডিওগুলিতে যাতে বোঝা না যায় সেই কারণে অভিযুক্ত জাদের নিজের মুখ অস্পষ্ট করে দিত বলেও জানা গিয়েছে। অবশেষে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করার পরে গ্রেফতার করা হয়েছে অভিযুক্ত ওই কনডাক্টরকে। বিষয়টির তীব্র সমালোচনা করেছেন একাধিক মহিলা সংগঠন। বিষয়টি নিয়ে পুলিশের তরফে শুরু হয়েছে বিস্তারিত তদন্ত।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।