ইসলামাবাদঃ   ১৯৯৮ সালে পরমাণু পরীক্ষা করেছে পাকিস্তান।  আর এর ফলে দক্ষিণ এশিয়ার ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রয়েছে।  এমনটাই চাঞ্চল্যকর দাবি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ।

গত রবিবার পাকিস্তানের পরমাণু পরীক্ষার বর্ষপূর্তি ছিল।  সেই বর্ষপূর্তিতে যোগ দেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ।  সেখানে এই দিনটিকে ঐতিহাসিক বলে ব্যাখ্যা করেন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ।  একই সঙ্গে তিনি বলেন, পাকিস্তান পরমাণু শক্তিধর একটি দেশ।  পাকিস্তানের পরমাণু শক্তি দক্ষিণ এশিয়ার ক্ষমতায় ভারসাম্য এনেছে বলে দাবি তাঁর।

নওয়াজের দাবি, পাকিস্তান পরমাণু শক্তিধর হওয়ায় এই অঞ্চলের বহু ছোট রাষ্ট্র স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে।

শরিফ জানান, পরমাণু শক্তিধর হওয়ার পর এখন পাকিস্তানের লক্ষ্য হল অর্থনৈতিক শক্তিধর রাষ্ট্র হিসেবে নিজেকে মেলে ধরা। এদিন নওয়াজ বলেন, ১৯ বছর আগে, আমরা নিজেদের প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রকে অভেদ্য করতে সক্ষম হয়েছি। এবার দেশের অর্থনীতিকে মজবুত ও স্থিতিশীল করতে হবে। আর সেটাই এখন মূল লক্ষ্য।  আর তা করতে পাকিস্তান সবকিছু করতে রাজি আছে বলে সাফ জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.