লাহোর: ভারতকে তাদের আকাশপথ ব্যবহার না করতে দেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় পাকিস্তান৷ বুধবার ইসলামাবাদ জানিয়েছে, আগামী ৩০মে অবধি ভারতের বিমানগুলির উপর এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে৷ তবে তারপরেও এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে, না উঠে যাবে তার কোনও আভাস পাওয়া যায়নি৷ আসলে পাকিস্তানের নজর ভারতের বর্তমান রাজনৈতিক গতিপ্রকৃতির দিকে৷ পাক প্রশাসন সূত্রে খবর, ভারতের লোকসভা ভোটের ফলাফলের উপর অনেকটা নির্ভর করছে এই সিদ্ধান্তের ভবিষ্যত৷

২৬ ফেব্রুয়ারি বালাকোটে জইশ-ই-মহম্মদের ক্যাম্পে ভারতীয় বায়ুসেনার এয়ারস্ট্রাইক করে৷ তারপরেই পাকিস্তান তাদের আকাশপথ ভারতের বিমানের জন্য পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়৷ তবে ২৭ মার্চ সেই নিষেধাজ্ঞা সাময়িক শিথিল করে পাক সরকার৷ কেবলমাত্র নয়াদিল্লি, ব্যাংকক ও কুয়ালা লামপুর ছাড়া সব বিমান ওড়ার অনুমতি দেওয়া হয়৷

বুধবার পাক প্রতিরক্ষা ও অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রকের আধিকারিকরা উচ্চপর্যায়ের বৈঠকের ডাক দেন৷ সেখানে পাক আকাশপথ ভারতের বিমানের জন্য ব্যবহারের বিষয়টি আলোচনা করা হয়৷ সেখানে এই নিষেধাজ্ঞার পরিধি ৩০ মে অবধি বাড়ানো হয়৷ বৈঠক শেষে এক শীর্ষ আধিকারিক এই কথা জানান৷ তিনি জানান, সিভিল অ্যাভিয়েশন অথরিটিকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে৷

বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের পর ভারতের উপর কূটনৈতিক চাপ বজায় রাখতে এই সিদ্ধান্ত নেয় পাক সরকার৷ আগে পাকিস্তানের আকাশ ছুঁয়ে কুয়ালালামপুরে চারটি বিমান যেত৷ ব্যাংকক ও নয়াদিল্লিতে আসত দুটি করে বিমান৷ এখন পাকিস্তান তাদের আকাশপথ ব্যবহার করতে না দেওয়ায় এই রুটগুলিতে লক্ষ লক্ষ টাকা ক্ষতি হচ্ছে৷ তার উপর যাত্রী হারাতে হচ্ছে৷ মধ্যপ্রাচ্য থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতে যাওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পাকিস্তানের আকাশপথ৷ তাই সেই আকাশপথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে এয়ারলাইন্সগুলিকে৷