নয়াদিল্লি: সীমান্তে প্রায় প্রতিদিনই সংঘাত অব্যাহত। সংবাদ শিরোনামে প্রায়ই উঠে আসে সে কথা। কিন্তু এবার একেবারে অন্য ঘটনা। ভারতীয়কে বিয়ে করতে চেয়ে ভিসার আবেদন করেছেন এক পাকিস্তানি।

আসল বিষয় হল পঞ্জাবের জলন্ধরবাসী কমল কল্যাণ ও পাকিস্তানের সুমাইলার বিয়ে আটকে গিয়েছে করোনার ভাইরাস ও সীমান্ত বিবাদের ফলে। মুশকিলে পড়েছেন বর কনে।

উপায় না পেয়ে পাকিস্তানের কনে তাই ভিসা দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে অনুরোধ করেছেন। সুমাইলা লাহোরের জোহনাবাদের বাসিন্দা। ২০১৮ সালে কমল কল্যাণের সঙ্গে তাঁর বিয়ের পাকাকথা হয়ে গিয়েছিল। কথা ছিল ২০২০ মার্চ মাসে তাঁদের বিয়ে হবে।

সুমিলা এবং তার পরিবারের কয়েকজন ২০২০ সালের মার্চে বিয়ের জন্য পাকিস্তান থেকে জলন্ধর আসার কথা ছিল। তবে করোনার কারণে বিয়ে আটকে পড়েছে দুজনের। অন্যদিকে পাকিস্তানি কনের সব কাগজপত্র থাকা সত্বেও তিনি ভারতে আসার ভিসা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন।

কমল কল্যাণ জলন্ধরের মধুবন কলোনির বাসিন্দা। গত ৫ বছর ধরে তাঁদের এই সম্পর্ক রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। কমল বলছেন, কখনও সুমিলার সঙ্গে তাঁর দেখা হয়নি, এমনকি বাগদানও হয়েছে ভিডিও কলের মাধ্যমে।

কমল ভারত সরকারের কাছে সুমিলাকে এদেশে আসতে অনুমতি স্বরূপ ভিসা দিতে আবেদন করেছেন। যাতে তাঁরা তাড়াতাড়ি বিয়ে করতে পারেন।

কমল কল্যাণের মা জানিয়েছেন, এই সম্পর্ক সম্পর্কে জানতে পেরে তিনি প্রথমে ছেলের উপর খুব রেগে গিয়েছিলেন , পরে সম্পর্কের বিষয়টি উভয় পরিবারই মেনে নেয়। এখন তারা চায় যে মেয়েটি কোনওভাবে ভিসা পেয়ে ভারতে আসুক যাতে বিয়েটা হয়ে যায়।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ