ইসলামাবাদ: পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদের শিবমন্দিরে হিন্দু নাগরিকদের পুজো করার অনুমতি দিল পেশোয়ার হাইকোর্ট। গত ২০ বছর ধরে বন্ধ ছিল এই মন্দিরটি।  মূলত ধর্মীয় কাজকর্মের জন্য ওই জমি এবং মন্দিরের সম্পত্তি নিয়ে সমস্যা চলছিল।  কিন্তু সেই সমস্যা আপাতত মিটে যাওয়াতে পুজো করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে হিন্দুদের।

মন্দিরটি তৈরি হয়েছিল ১৭৫ বছর আগে, জানান একটি হিন্দু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বালমিক সভার প্রধান শ্যাম লাল। এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা দাবি করে যে ভারত পাকিস্তান ভাগাভাগির পর থেকেই ১৯৬০ সাল অবধি তারা এই মন্দিরটির দেখভাল করেছে। এরপর ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড অফ অ্যাবোটাবাদ (সিবিএ) এই মন্দিরসহ অন্যান্য হিন্দু সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে নেয়। আট বছর আগে এই মন্দিরে শুধুমাত্র প্রার্থনা করার অনুমতি দেয় সিবিএ।

২০১৩ সালে এই সিবিএ-এর বিরুদ্ধে আদালতে আবেদন করে বালমিক সভা। অবশেষে আবার এই মন্দিরে পুজো শুরু হবে বলে ঘোষণা করে পেশোয়ার হাইকোর্টের বিচারপতি আতিক হাসান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।