নয়াদিল্লি : দেশের করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ। দেশের এই কঠিন পরিস্থিতিতে ভারতের পাশে এসে দাঁড়াচ্ছে একাধিক দেশ। ওষুধ, অক্সিজেন, চিকিৎসা সরঞ্জাম দিয়ক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে অনেকেই। আপাদমস্তক ভারত বিরোধী হলেও পড়শি দেশ পাকিস্তানের বহু নাগরিকও কঠিন পরিস্থিতিতে ভারতবাসীদের প্রতি সহানুভূতি জানিয়ে টুইট করেছেন।

তবে এবার গান গেয়ে ভারতের পাশে থাকার বার্তা দিলেন পাকিস্তানি গায়ক জিশান আলি এবং নৌমান আলি। মিউজিক ডিরেক্টর এ আর রহমানের ২০০৯ সালে গাওয়া ‘আরজিয়া’ গানটি গেয়েছেন জিশান-নৌমানরা। কঠিন করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় ভারতের পাশে থাকার বার্তা দিয়েই গানটি তৈরি করেছেন তাঁরা।

গানটি গাওয়ার পর সেটি ফেসবুকে নিজেদের ওয়ালে পোস্ট করেন ওই দুই গায়ক। এরপরই তা ব্যাপক ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। দেশের এই দুর্দিনে পাকিস্তানী যুবকদের এভাবেই ভারতের পাশে থাকার বার্তাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন নেটিজেনরা। অনেক ভারতীয়রা গানটি শুনে তাঁদের ধন্যবাদও জানিয়েছেন।

তবে, মূল গানটির সঙ্গে তাঁদের গাওয়া এই গানটির কলির কিছু পরিবর্তন ঘটিয়েছেন ওই পাক গায়করা “হসলা না হারো ইয়ে ওয়াক্ত ভি টাল জায়েগা, রাত জিতনি ঘানি হো ফির সবেরা আয়েগা।” যার বাংলা মানে করলে দাঁড়ায়, “আশা ছেড়ে দিও না। এই সংকট কেটে যাবে। রাত অনেক গভীর কিন্তু ভোরও হবে।”

উল্লেখ্য, মানুষকে স্বস্তি দিয়ে রবিবার কিছুটা কমেছিল করোনা সংক্রমণ। সোমবারও সেই জের অব্যাহত রইল। এদিন রবিবারের রিপোর্টের তুলনাতেও কমল করোনা সংক্রমণ। আক্রন্তের সংখ্যা নেমে এসেছে ৩ লক্ষ ৬৮ হাজারে। পাশাপাশি বেড়েছে সুস্থতার হারও।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৬৮ হাজার ১৪৭ জন। গত কয়েকদিন যেভাবে ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছিল সংক্রমণ, এদিনের সংখ্যা তার চেয়ে কিছুটা কম। রবিবারের তুলনায় কমেছে একদিনে মৃত্যুর সংখ্যাও। সোমবারের রিপোর্ট বলছে মৃতের সংখ্যা সাড়ে তিন হাজারের নিচে। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৪১৭ জনের। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৯৯ লক্ষ ২৫ হাজার ৬০৪ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ লক্ষ ১৮ হাজার ৯৫৯। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনামুক্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৭৩২ জন। আক্রান্তের পাশাপাশি সুস্থতার সংখ্যা বাড়ায় খানিকটা স্বস্তি ফিরেছে। বর্তমানে দেশের মোট অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ৩৪ লক্ষ ১৩ হাজার ৬৪২। দেশে এখনও পর্যন্ত সবমিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ৬২ লক্ষ ৯৩হাজার ৩ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে টিকা পেয়েছেন মোট ১৫ কোটি ৭১ লক্ষ ৯৮ হাজার ২০৭ জন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.