নয়াদিল্লি: অবশেষে কুলভূষণ যাদবকে কনস্যুলার অ্যাকসেস দিতে চলেছে পাকিস্তান। সোমবার তাঁকে কনস্যুলার অ্যাকসেস দেওয়া হবে। রবিবার ভারতের বিদেশমন্ত্রকের তরফ থেকে এই খবর জানানো হয়েছে।

প্রথম থেকেই কুলভূষণকে কনস্যুলার অ্যাকসেস দেওয়ার দাবি জানিয়েছিল ভারত। কিন্তু তা মানতে চায়নি পাকিস্তান। পরে আন্তর্জাতিক আদালতে মুখ পোড়ে পাকিস্তানের। জানিয়ে দেওয়া হয় পাকিস্তানকে অবশ্যই কনস্যুলার অ্যাকসেস দিতে হবে।

এরপর কুলভূষণের কনসুলারের অ্যাকসেসে ছাড় দেয় পাকিস্তান৷ তবে বলা হয় পাকিস্তানের আইন অনুযায়ী এই অ্যাকসেস দেওয়া হবে৷ তবে সেই শর্তে রাজি ছিল না নয়াদিল্লি৷ ভারতের পক্ষ থেকে বলা হয় শর্তহীন কনসুলার অ্যাকসেস চায় তারা৷ সেই দাবি খারিজ করে দিয়েছিল পাকিস্তান।

গত ১৭ জুলাই আন্তর্জাতিক আদালতে কুলভূষণ মামলার রায় দেওয়া হয়। সেনা আদালতের দেওয়া মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশে স্থগিতাদেশ জারি করে আদালত।

পাশাপাশি, ভিয়েনা কনভেনশনের ৩৬ নম্বর আর্টিকলের প্রথম প্যারাগ্রাফ অনুসারে কুলভূষণ যাদবকে কুনস্যুলার অ্যাকসেস দেওয়া হয়নি বলেও সেখানে মন্তব্য করা হয়। এর জেরে কুলভূষণকে তাঁর অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়। আর এইভাবে পাকিস্তান ভিয়েনা কনভেশন লঙ্ঘন করেছে বলেও পাকিস্তানকে অস্বস্তিতে ফেলে আন্তর্জাতিক আদালত।

আদালত স্পষ্ট জানিয়েছিল, কুলভূষণের সঙ্গে ভারতীয় কূটনীতিকদের দেখা করতে না দিয়ে ও তাঁর আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার ব্যবস্থা করার সুযোগ না দিয়ে পাকিস্তানকে ভারতকে বঞ্চিত করেছে।

দেরি না করে পাকিস্তানকে অবিলম্বে কুলভূষণ যাদবের অধিকার সম্পকে তাঁকে অবগত করার নির্দেশ দেওয়া হয়। ভিয়েনা কনভেনশনের ৩৬ নম্বর আর্টিকল অনুযায়ী, ভারতকে কনস্যুলার অ্যাকসেস দেওয়ার কথা বলা হয়।