ইসলামাবাদ: জঙ্গি নাশকতার কালো অধ্যায় অতীত। দীর্ঘ দশ বছরের বেশি সময় বাদে ফের পাকিস্তানের মাটিতে বসতে চলেছে টেস্ট ক্রিকেটের আসর। আগামী ডিসেম্বরে পাক ভূখন্ডে দু’ম্যাচের টেস্ট সিরিজে অংশগ্রহণ করার বিষয়ে সম্মতি প্রদান করল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট। অর্থাৎ, গত সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে সীমিত ওভারের ক্রিকেটের পর এবার টেস্ট সিরিজ খেলতে ইমরানের দেশে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল।

ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ হিসেবেই পাকিস্তানের মাটিতে দু’টি টেস্ট খেলবে দ্বীপ রাষ্ট্রটি। যার প্রথমটি ১১-১৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে রাওয়ালপিন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। এরপর ১৯-২৩ ডিসেম্বর সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটি হবে করাচি ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে। স্বাভাবিকভাবেই পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজনের প্রশ্নে কিংবা পাকিস্তান ক্রিকেটের উন্নতির জন্য এই টেস্ট সিরিজ যে সদর্থক ভূমিকা গ্রহণ করবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের তরফ থেকে প্রেস বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘প্রাথমিকভাবে পাকিস্তানের মাটিতে শ্রীলঙ্কার এই টেস্ট সিরিজটি খেলার কথা ছিল অক্টোবরে এবং ডিসেম্বরে সীমিত ওভার ক্রিকেট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নিরাপত্তার দিকটি দেখভাল না করে টেস্ট ভেন্যু নির্বাচন করার পক্ষপাতী ছিল না শ্রীলঙ্কা। তাই সীমিত ওভার ও টেস্ট ক্রিকেটের সময় পরিবর্তন করা হয়।’

পিসিবি ডিরেক্টর জাকির নায়েকের কথায়, ‘পাকিস্তান ক্রিকেটের জন্য এটা দারুণ খবর। পাকিস্তান এখন বাকি দেশগুলোর মতোই ক্রিকেট আয়োজনের প্রশ্নে নিরাপদ ও ঝুঁকিহীন। পাক ভূখন্ডে টেস্ট ক্রিকেট খেলার বিষয়ে সম্মতি প্রদানের জন্য আমরা শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের কাছে কৃতজ্ঞ। পিসিবি’র নিরন্তর প্রয়াস দেশের মাটিতে আগামিদিনে ফের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে ফিরিয়ে আনবে।’

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের মুখ্য আধিকারিক অ্যাশলে ডি’সিলভা একটি বিবৃতি মারফৎ জানিয়েছেন, ‘সীমিত ওভারের সিরিজ খেলে আসার পর আমরা সেদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সন্তুষ্ট। তাই পাকিস্তানের মাটিতে পুনরায় টেস্ট সিরিজ খেলতে যাওয়ার বিষয়ে আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি।’

উল্লেখ্য, ২০০৯ পাকিস্তানে সফররত শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের টিম বাসে জঙ্গি হামলার ঘটনার পর এত বছর সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতেই তাঁদের হোম সিরিজ আয়োজন করত পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। অবশেষে দশ বছরেরও বেশি সময় বাদে পাঁচদিনের ক্রিকেট ফিরছে পাক ভূখন্ডে। এখন দেখার শ্রীলঙ্কার পদাঙ্ক অনুসরণ করে বাকি দেশগুলি কত শীঘ্র সেদেশে সিরিজ খেলতে যাওয়ার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করে।